নন্দীগ্রামে নলকূপ স্থাপন আদালতে মামলা; তদন্ত অনুষ্ঠিত

নন্দীগ্রামে নলকূপ স্থাপন আদালতে মামলা; তদন্ত অনুষ্ঠিত

নন্দীগ্রামে নলকূপ স্থাপন আদালতে মামলা; তদন্ত অনুষ্ঠিত

বগুড়ার নন্দীগ্রামে সরকারি বিধি লঙ্ঘন করে অগভীর নলকূপ স্থাপন করায় আদালতে মামলা, তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে। মামলার বিবরণে প্রকাশ, নন্দীগ্রাম উপজেলার কামূল্লা পশ্চিম পাড়া গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিনের পুত্র আক্কাছ আলী কামূল্লা মৌজার ১১৬/৬১৯ নং দাগে একটি  অগভীর নলকূপ স্থাপন করে তৎদ্বারা সেচ স্কীম পরিচালনা করে আসছে। 

এবং উক্ত স্কীমের উপর উপজেলা সেচ কমিটি  গত ২৭/০৯/২০২১ ইং তারিখে ৬৪/২১ নং লাইসেন্স প্রদান করেন, উক্ত স্কীমে ৬৫ বিঘা  জমিতে  লাইসেন্স পাওয়ার পর  বিদ্যুৎ সংযোগ করে পানি সেচ করে আসছে। ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবস্থাপনা আইন ২০১৮ এবং বিধি মালা ২০১৯ এর  ১নং তপশীলে ০.৫০ কিউসেক ক্ষমতা সম্পূর্ন্ন অগভীর নলকূপ হইতে  অপর একটি নলকূপের পারস্পারিক দূরত্ব ২৫০ মিটার ৮২০ ফুট নির্ধারণ করা হইয়াছে। কিন্তু একই গ্রামের  মৃত আব্দুল হামিদ খোকনের স্ত্রী সেলিনা আক্তার উপজেলা সেচ কমিটিকে ভুল তথ্য দিয়ে গত ১১/০১/২০২২ ইং তারিখে ১২৭/২১ নং লাইসেন্স বের করে, এবং জোর পূর্বক বিধি লঙ্ঘন করে আক্কাছের স্কীমের ৮২০ ফুট এলাকার  মধ্য ৬১৯ নং দাগে একটি অগভীর  সেচ মেশিন  স্থাপনের  চেষ্টা করে। তখন আক্কাছ বাদী হয়ে গত ০৩/০৩/২০২২ ইং তারিখে  বগুড়ার নন্দীগ্রাম  থানা সহকারী জজ আদালতে ৬/২০২২ অন্য নং একটি মামলা দায়ের করেন। 

এবং মামলাটি তদন্ত দেওয়ার জন্য মহামান্য আদালতের নিকট প্রার্থনা করেন, আদালত শুনানী অন্তে কমিশনার আনোয়ার হোসেনকে তদন্ত করার নির্দেশ দেন, তিনি গত ১৩/০৮/২২ ইং তারিখে বেলা ১১ টায় সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জহুরুল ইসলাম, মামলার বাদী আক্কাস আলী গং। আক্কাস আলী এই প্রতিনিধিকে জানান, তদন্তকালে আমিন দ্বারা পরিমাপ করে দেখা যায় তার অগভির নলকূপ থেকে সেলিনার  নব-নির্মিত ঘরের দূরত্ব ৭২২ফিট  কিন্তু বিধিমোতাবেক হওয়ার কথা ৮২০ ফিট। 

সেলিনা আদালতের আদেশ কে অমান্য করে  জোর পূর্বক  মেশিন ঘর নির্মান করার চেষ্টা করছে, সেলিনা আমাকে মিথ্যা মামলা সহ বিভিন্ন ক্ষতি করার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং আমাকে রাস্তাঘাটে প্রতিরোধ করে মারপিট করার জন্য বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে।  

পাঠকের মন্তব্য