বাংলাদেশির সমকামিতা: মালদ্বীপে ১৮ জনের ওপর নিষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশির সমকামিতা: মালদ্বীপে ১৮ জনের ওপর নিষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশির সমকামিতা: মালদ্বীপে ১৮ জনের ওপর নিষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশি নাগরিক মোঃ আলমগীরের সঙ্গে সমকামী সম্পর্ক ছিল এমন সন্দেহে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র মালদ্বীপের ১৮ জন পুরুষের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আলমগীর রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, সরকারী কর্মচারীসহ দেশটির বিপুল সংখ্যক পুরুষের সাথে সমকামী সম্পর্কের ভিডিওচিত্র ধারণ করেছিলেন।

মালদ্বীপের অনলাইন পত্রিকা আভাস এ খবর নিশ্চিত করে বলছেঃ আলমগীরকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করা হলেও ভিডিওগুলো এখনও ফাঁস হচ্ছে। মালদ্বীপ পুলিশ সার্ভিস নিশ্চিত করেছে যে, এ মামলায় ১৮ জনের পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে।

আলমগীরের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে দুটি অভিযোগ রয়েছে: বিপুল সংখ্যক মানুষকে ব্ল্যাকমেইল করা এবং সমকামী সম্পর্ক স্থাপন করা। ফাঁস হওয়া ভিডিওর সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্টের বর্তমান স্পিকার মোহাম্মদ নাশিদের ভাই এবং দেশটির বিশিষ্ট আইনজীবী আহমেদ নাজিম আবদুল সাত্তার, সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ (কর্নেল) নাশিদ সহ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মচারীকে বরখাস্তও করা হয়েছে।

এর আগে, জুলাইয়ের শেষদিকে মালদ্বীপের স্থানীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছিলঃ ফাঁস হওয়া এক ভিডিওতে নাজিম রাজধানী মালেতে বসবাসরত ২৫ বছর বয়সী তরুণ বাংলাদেশি নাগরিক আলমগীরের সাথে যৌন ক্রিয়াকলাপে জড়িত থাকাবস্থায় ধরা পড়েছিলেন। আলমগীর মালেতে পতিতা হিসেবে কাজ করে থাকেন।

উল্লেখ্য, গত জুন মাসে মালদ্বীপে বেশ কয়েকটি ভিডিও ফাঁস হয়েছিল, যেগুলোতে আলমগীরকে মালদ্বীপের বেশ কয়েকজন হাই-প্রোফাইল পুরুষের সাথে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হতে দেখা গিয়েছে এমন অভিযোগ রয়েছে। ওইসব পুরুষদের মধ্যে নাজিম, কর্নেল নাশিদ এবং মাদক নিয়ন্ত্রণ বিভাগে কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুল রহমান রাফিউ রয়েছেন।

গত ১২ জুলাই আলমগীরকে মালদ্বীপের বেশ কয়েকজন পুরুষের সাথে সমকামী কার্যকলাপে লিপ্ত হওয়ার ভিডিও ফাঁস হওয়ার কারণে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল বলে দেশটির গণমাধ্যম নিশ্চিত করেছিল। 

পাঠকের মন্তব্য