ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তাঁর আদর্শের মৃত্যু নেই

 প্রধান অতিথির এরফান হোসেন দীপ

প্রধান অতিথির এরফান হোসেন দীপ

নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সাবেক সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মোবারক হোসেন এর সুযোগ্য পুত্র এবং মোবারক হোসেন স্মৃতি সংসদ এর চেয়ারম্যান এরফান হোসেন দীপ বলেছেন, ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তাঁর স্বপ্ন ও আদর্শের মৃত্যু ঘটাতে পারেনি। স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী এবং গণতন্ত্রবিরোধী চক্র এখনও নানাভাবে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। এই অপশক্তির যে কোনো অপতৎপরতা ও ষড়যন্ত্র ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করে দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা এবং গণতন্ত্র রক্ষার জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে।

জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার (১৯ আগষ্ট) আওয়ামীগের প্রবীন নেতা আলী হোসেন মাষ্টারের সভাপতিত্বে উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের বিষ্ণাদী বাজারে দোয়া মাহফিল, গনভোজ ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এরফান হোসেন দীপ এ কথা বলেন।

উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান মেহমান আড়াই হাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে আমরা জাতির পিতার হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করেছি। এ হত্যাকান্ডের বিচারের রায় কার্যকরের মধ্য দিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। আশা করি, জাতির পিতার হত্যার ষড়যন্ত্রের পেছনে কারা ছিল সেটাও একদিন বের হয়ে আসবে। 

জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচারও সম্পন্ন হয়েছে। একাত্তরের মানবতাবিরোধী-যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর করা হচ্ছে। জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে আমাদের সরকার 'জিরো টলারেন্স' নীতি অনুসরণ করছে এবং  সংবিধানে পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতা দখলের সুযোগ বন্ধ হয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল আলম সামসু বলেন, বর্তমান সরকারের মাধ্যমে আমরা দেশের প্রতিটি সেক্টরে কাঙ্ক্ষিত অগ্রগতি অর্জন করেছি। এই সময়ে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশ বিশ্বে 'রোল মডেল' হয়েছে। আমাদের সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার লক্ষ্য নিয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। জাতির পিতার দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাঙালি জাতি পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙ্গে ছিনিয়ে এনেছিল আমাদের মহান স্বাধীনতা। সদ্য স্বাধীন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব যখন সমগ্র জাতিকে নিয়ে সোনার বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে নিয়োজিত, তখনই স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী চক্র তাকে পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ হত্যা করে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নোয়াগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী ফজলুল হক, বারদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম, মোগরাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার আলী মেম্বার, শাহ জালাল, আলী হোসেন, মোতালেব, নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম, ৮ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন, ৯নং ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবক লীগের  সভাপতি মো: শামীম, সহসভাপতি সিরাজুল ইসলাম, ১নং ওয়ার্ডের আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মো: সেলিম, সাধারণ সম্পাদক মো: মোশাররফ, ১নং ওয়ার্ডের আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মোঃ গাফফার এবং ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি মোঃ স্বপনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভা শেষে অসহায় দুস্থদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়।

 

পাঠকের মন্তব্য