সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদানের অভিযোগে আটক ২  

সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদানের অভিযোগে আটক ২  

সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদানের অভিযোগে আটক ২  

নাটোরের লালপুরে জাল ও জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান ও অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে ২ জন কে আটক করেছে র‌্যাব-৫।  আটককৃতরা হলো- লালপুর উপজেলার ফুলবাড়ি গ্রামের মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে মো. রোকন সরকার (৩৭) ও বাগাতিপাড়ার ডুমরাই সারদিয়ার গ্রামের মো. ফজলুর রহমান পটলের ছেলে মো. আশিক আলী (২১)।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে লালপুর উপজেলার ওয়ালিয়া ইউনিয়নের ধুপাইল বাজারে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

র‌্যাব-৫, সিপিসি-২, নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ হোসেন জানান, জাল ও জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান ও অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে নাটোর র‌্যাব ক্যাম্পের একটি অভিযানিক দল উপজেলার ওয়ালিয়া ইউনিয়নের ধুপইল বাজারে অভিযান চালিয়ে রোকন সরকার (৩৭) ও আশিক আলী (২১) কে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে দুইটি ভূয়া নিয়োগপত্র,  দুইটি মোবাইল উদ্ধার পূর্বক জব্দ করা হয়।

তিনি আরো জানান, অভিযোগকারীর সোহান আহম্মেদ ও মহাসীন আলীর নিকট থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে মেসওয়েটার ও পাম্প অপারেটর পদে চাকুরিতে নিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে দুজনের নিকট হতে ১১ লাখ ৯৪ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে দুটি ভূয়া নিয়োগপত্র প্রদান করেন। পরবর্তীতে চাকুরী প্রার্থীগণ নিয়োগপত্রে উল্লেখিত যোগদানের তারিখে সংশ্লিষ্ট অফিসে যোগদানের জন্য যোগাযোগ করলে বুঝতে পারেন যে উক্ত নিয়োগপত্র সঠিক নয় বা ভুয়া। 

আটককৃতরা দীর্ঘদিন ধরে পরস্পর যোগসাজশে কৌশলে প্রত্যাশী যুবকদের চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে অর্থের বিনিময়ে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন পদে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে প্রতারণার মাধমে কম্পিউটারে এডিটিং করে সেনাবাহিনীর মনোগ্রামসহ সিল  মোহর ও স্বাক্ষর ব্যবহার করে চাকুরীর ভূয়া নিয়োগপত্র চাকুরী প্রত্যাশীগণের নিকট দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। পরে আটককৃতরা উপস্থিত জনসম্মুখে অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে। 

অভিযোগকারীদ্বয় বাদী হয়ে নাটোর জেলার বাগাতিপাড়া থানায় আটককৃত আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে প্রতারনা মামলা দায়ের করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। 

পাঠকের মন্তব্য