নেপালকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ; কলসিন্দুরে আনন্দের বন্যা

তারকা ফুটবলার সানজিদা আক্তার

তারকা ফুটবলার সানজিদা আক্তার

আনন্দ আর উচ্ছ্বাসের জোয়ারে ভাসছে ময়মনসিংহের সীমান্তবর্তী উপজেলা ধোবাউড়ার প্রত্যন্ত কলসিন্দুর গ্রাম। 

বাঁধভাঙ্গা এই আনন্দ আর উচ্ছ্বাস তারকা ফুটবলার সানজিদা আক্তার, মারিয়া মা-া ও শামসুন্নাহার জুনিয়রের অবিশ্বাস্য বিজয়ে।  প্রথমবারের মতো নারী সাফ ফুটবলে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করায় আনন্দের ঢেউ বইছে সানজিদা আক্তারের নিজ এলাকা কলসিন্দুর গ্রামে। 

সোমবার স্বাগতিক নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে নারী ফুটবলে ইতিহাস গড়ে বাংলাদেশ। আর এই টিমেরই তারকা ফুটবলার কলসিন্দুর গ্রামের কন্যা সানজিদা আক্তার।

সাফ জয়ী জাতীয় দলের আটজনের মধ্যে এবার সানজিদাসহ ছয়জন এই এলাকার। আর টিমের আটজনই হচ্ছে কলসিন্দুর স্কুল এ্যান্ড কলেজের  প্রাক্তন শিক্ষার্থী। ইতিহাস গড়া এমন খবরে খুশি ধোবাউড়ার কলসিন্দুর স্কুল এ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষসহ এলাকার নানা শ্রেণী- পেশার ফুটবল প্রেমিক। সোমবার দুপুরের পর থেকেই চলছিল নারী সাফ ফুটবল খেলা দেখার প্রস্ততি। সানজিদার নিজ এলাকার বাসাবাড়ি ছাড়াও স্থানীয় হাটবাজার ও দোকানে দোকানে অনেক দর্শক ভিড় জমান খেলা দেখতে। সবার মধ্যেই ছিল বাংলাদেশ জিতবেই এমন আত্মবিশ্বাসের আবেগ আর উচ্ছ্বাস। সন্ধ্যার পর সেই বিশ্বাসই সত্যিই হলো।

স্বাগতিক নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করলে আনন্দের ঢেউ ছড়িয়ে পড়ে সানজিদার নিজ এলাকায়।  মেয়ের এমন সাফল্যে আবেগাপ্লুত ও দারুণ উচ্ছ্বসিত সানজিদার বাবা লিয়াকত আলীসহ স্থানীয় কলসিন্দুর স্কুলের টিম ম্যানেজার মালা রানী সরকার ও কোচ জুয়েল মিয়া। 

সানজিদার বাবা লিয়াকত আলী সাংবাদিকদের জানান, মেয়ের বিজয়ে তিনি আবেগাপ্লুত। তিনি জানান, বাংলাদেশের এই বিজয়ে তিনি গর্বিত। কলসিন্দুর স্কুলের টিম ম্যানেজার মালা রানী সরকার জানান, জাতীয় নারী ফুটবল দলে কলসিন্দুরের মেয়েরা খেলছে, এটি গর্বের।

আগামীতে তারা দেশের মুখ আরও উজ্জ্বল করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। 

কোচ জুয়েল মিয়া জানান, এই আনন্দের শেষ নেই। কলসিন্দুর স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ রতন মিয়া জানান, স্কুল টিমের আটজন সাফ ফুটবল টিমে অংশ নিয়েছে; এর চেয়ে আর বড় গৌরব ও আনন্দ আর কী হতে পারে।  ধোবাউড়া উপজেলার কলসিন্দুর গ্রামের ফুটবল তারকা সানজিদা আক্তার, শামসুন্নাহার জুনিয়র, মারিয়া মা-ার নেতৃত্বে আগামীতে নারী ফুটবলে বাংলাদেশ অনেকদূর এগিয়ে যাবে, এমন প্রত্যাশা সকলের।

পাঠকের মন্তব্য