ডিআইএ'র প্রতিবেদন দাখিল 

'১ হাজার ১০৮ জন শিক্ষকের জাল সনদ শনাক্ত'

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর

দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ১ হাজার ১০৮ জন শিক্ষকের জাল সনদ শনাক্ত হয়েছে। এই সনদধারী শিক্ষকদের পেছনে সরকারি কোষাগার থেকে ব্যয় হয়েছে ৪৯ কোটি ৮২ লাখ ৪৫ হাজার ৩৬০ টাকা। আর অবৈধ নিয়োগ, প্রাপ্যতার অতিরিক্ত গ্রহণ ও অন্যান্য খাতে ব্যয় হয়েছে আরো ২৬৮ কোটি ৩৫ লাখ ৯১ হাজার ৪৬৯ টাকা। এসব অর্থ সরকারি কোষাগারে ফেরত নেওয়ার সুপারিশসহ সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠিয়েছে পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর (ডিআইএ)।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, গত দুই বছরের কম সময়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জমি হাতছাড়া হয়েছে ৮৬৯ একরের বেশি। ১০ বছরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শনের তথ্য সংবলিত প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে ডিআইএর যুগ্ম পরিচালক বিপুল চন্দ্র সরকার সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে আমরা শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জাল শনাক্ত করেছি। ২০২১ সালের মার্চ থেকে ২০২২ সালের আগস্ট পর্যন্ত জমি বেহাত হওয়ার তথ্য পেয়েছি। অবৈধ নিয়োগের কারণে এবং প্রাপ্যতার অতিরিক্ত নেওয়া অর্থ ফেরতের সুপারিশ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে।

বিপুল চন্দ্র সরকার জানান, গত ১০ বছরে দেশের ২৪ হাজার ৯৭৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করা হয়েছে। পরিদর্শন প্রতিবেদনও পাঠানো হয়েছে মন্ত্রণালয়ে।

গত ২৪ জুন ডিআইএর পরিচালক অধ্যাপক অলিউল্লাহ মো. আজমতগীরের সই করা প্রতিবেদনে জানানা হয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের মোট জাল সনদ শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ১০৮টি। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ৮২৪টি এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের ২৮৪টি।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ২০১২ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত শুধু শিক্ষক নিবন্ধন জাল শনাক্ত হয়েছে ৬১৫টি। নেকটারের কম্পিউটার সনদ জাল শনাক্ত হয়েছে ১৬০টি। অন্যান্য সনদ জাল শনাক্ত হয়েছে ৪৯টি। সর্বমোট ৮২৪টি।

আর কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের ২০১২ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত শিক্ষক নিবন্ধন জাল শনাক্ত হয়েছে ১৮৪টি। নেকটারের কম্পিউটার সনদ জাল শনাক্ত হয়েছে ৮৯টি। অন্যান্য সনদ জাল শনাক্ত হয়েছে ১১টি। সর্বমোট ২৮৪টি।

এসব জাল সনদের বিপরীতে শিক্ষকদের গ্রহণ করা অর্থ ৪৯ কোটি ৮২ লাখ ৪৫ হাজার ৩৬০ টাকা। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ৩৬ কোটি ১০ লাখ, ৬৮ হাজার ৪৭৪ টাকা এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের ১৩ কোটি ৭১ লাখ ৭৬ হাজার ৮৮৬ টাকা।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জমি বেহাত : ২০২১-এর মার্চ থেকে ২০২২ সালের আগস্ট পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল কলেজ ও মাদরাসা) জমি বেহাত হয়েছে মোট ৮৬৯ দশমিক ২১ একর। বেহাত হওয়া জমির মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ৫৭৫ দশমিক ৯৮ একর এবং কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের ২৯৩ দশমিক ২৬ একর।

অবৈধ নিয়োগ ও প্রাপ্যতার অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণ : প্রতিবেদনে বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অবৈধ নিয়োগ, প্রাপ্যতার অতিরিক্ত গ্রহণ ও অন্যান্য খাতে ২০১২-১৩ থেকে ২০২১-২২ অর্থবছরে ব্যয় হয়েছে ২৬৮ কোটি ৩৫ লাখ, ৯১ হাজার ৪৬৯ টাকা। এ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরতযোগ্য হিসেবে সুপারিশ করা হয়।

পাঠকের মন্তব্য