রেকর্ড ছুঁইতে নেইমারের প্রয়োজন আর মাত্র একটি গোল

নেইমার ও  কিংবদন্তি পেলে

নেইমার ও কিংবদন্তি পেলে

দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ব্রাজিল। শেষ ষোলোর লড়াইয়ে এশিয়ার সবশেষ প্রতিনিধিদের ৪-১ গোলে হারিয়েছে সেলেসাওরা। প্রথমার্ধেই চারবার জালে বল পাঠিয়ে ম্যাচের গতিপথ একরকম ঠিক করে ফেলে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

দোহায় স্টেডিয়াম ৯৭৪- এ সোমবার শেষ ষোলোর ম্যাচটিতে সপ্তম মিনিটে তাদের গোল উৎসবের শুরু করেন ভিনিসিউস জুনিয়র। একে একে স্কোরলাইনে নাম লেখান নেইমার, রিচর্লিসন ও লুকাস পাকেতা। এ জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

এদিন ডি-বক্সের বাইরে কোরিয়া বল হারালে তা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন রাফিনিয়া। এরপর বাইলাইন থেকে বক্সের বাঁ দিকে পাস দেন তিনি। ফাঁকায় বল পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডান পায়ের জোরাল শটে দূরের পোস্ট দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন ভিনিসিউস।

ছয় মিনিট পর সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার। বক্সে রিশার্লিসনকে কোরিয়ার জং য়ু-ইয়ং ফাউল করলে পেনাল্টিটি পায় ব্রাজিল। দেশের হয়ে নেইমারের সবশেষ ৬ গোলের সবকটিই পেনাল্টি থেকে।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে নেইমারের গোল হলো ৭৬টি, ১২৩ ম্যাচে। আর একটি গোল করলেই তিনি ছুঁয়ে ফেলবেন ব্রাজিলের সর্বোচ্চ গোলদাতা কিংবদন্তি পেলের রেকর্ড।

চার মিনিট পর আলিসনের নৈপুণ্যে জাল অক্ষত থাকে ব্রাজিলের।

অনেক দূর থেকে মিডফিল্ডার হাং হি-চানের বুলেট গতির শট ক্রসবার ঘেঁষে জালে জড়াতে যাচ্ছিল, শেষ মুহূর্তে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান লিভারপুল গোলরক্ষক। ২৯তম মিনিটে চোখজুড়ানো ফুটবলে ব্যবধান আরও বাড়ান রিচর্লিসন।

প্রতিটি গোল শেষেই ট্রেডমার্ক হয়ে ওঠা নাচে উদযাপন করছিল ব্রাজিল। তবে তৃতীয় গোলটি ছিল যেন বিশেষ। রিচর্লিসনের এত সুন্দর গোলটা দেখে শিষ্যদের সঙ্গে নাচে যোগ দেন কোচ তিতেও।

 ৩৬তম মিনিটে আরেকটি বিধ্বংসী আক্রমণে স্কোরলাইন ৪-০ করেন পাকেতা।

প্রথমার্ধের বিরতির পর ব্রাজিল অবশ্য এই ভীতি বেশিক্ষণ সঞ্চার করতে পারেনি। প্রথমার্ধে ব্রাজিলের পোস্টে একটি শট রাখতে পারা কোরিয়া সান্ত্বনাসূচক গোলের একটা সুযোগ পেয়েছে ৪৮ মিনিটে। কিন্তু সন হিউং–মিনের দারুণ শটটি রুখে দিয়ে গা–টা গরম করেন ব্রাজিল গোলরক্ষক আলিসন। প্রমার্ধে যিনি প্রায় ‘বেকার’ দাঁড়িয়ে ছিলেন ! ওই সুযোগের ১০ মিনিট পর জটলার ভেতর থেকে গোলের আরও একটি সুযোগ পেয়েছিল কোরিয়া। মারকিনিওস, থিয়াগো সিলভাদের দৃঢ়তায় আর গোল হয়নি। তবে কোরিয়া একেবারে খালি হাতে ফেরেনি। ৭৬ মিনিটে দূরপাল্লার শটে গোল করেন পাইক–সিউং–হো (৪-১)। 

এরপর কোরিয়া চেষ্ঠা করলেও ব্যবধান কমাতে পারেনি। যারফলে ৪-১ এ জয় নিয়েই কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করলো ব্রাজিল। আগামী ১০ নভেম্বর কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

পাঠকের মন্তব্য