৩৬ ঘণ্টা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা রাশিয়ার; মানছেন না ইউক্রেন 

৩৬ ঘণ্টা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা রাশিয়ার; মানছেন না ইউক্রেন 

৩৬ ঘণ্টা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা রাশিয়ার; মানছেন না ইউক্রেন 

শুক্রবার দুপুর থেকে শনিবার রাত পর্যন্ত ৩৬ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন। তিনি জানিয়েছেন, অর্থডক্স ক্রিসমাসের কথা মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সময়পর্বে রাশিয়ার সেনা কোনোরকম আক্রমণ চালাবে না। গোলাগুলি বন্ধ থাকবে।

ক্রেমলিন জানিয়েছে, রাশিয়ার ধর্মীয় নেতা প্যাট্রিয়ার্ক কিরিলের অনুরোধে একাজ করেছেন পুটিন। বস্তুত, পুটিন নিজেও জানিয়েছেন, কিরিল বলার পরেই এই সিদ্ধান্ত তিনি নিয়েছেন। রাশিয়ার সময় শুক্রবার বেলা ১২টা থেকে শনিবার রাত রাত ১২টা পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতি চলবে বলে রাশিয়া জানিয়েছে। গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর সার্বিকভাবে এই প্রথম কোনোপক্ষ যুদ্ধবরিতি ঘোষণা করল।

মানছেন না জেলেনস্কি

পুটিনের আহ্বানে সারা দেননি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। বৃহস্পতিবার তিনি জানিয়েছেন, এ-ও এক ধরনের কৌশল। যুদ্ধবিরতির নাম করে রাশিয়ার সেনাকে ইউক্রেনের আরো বেশ কিছু জায়গায় ঢুকিয়ে দিতে চাইছেন পুটিন। বস্তুত, ইউক্রেনের বেশ কিছু অঞ্চলে এখনো রাশিয়ার সেনা আছে। বিশেষত পূর্ব ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে বিপুল পরিমাণ রাশিয়ার সেনা এলাকা দখল করে রেখেছে। জেলেনস্কি জানিয়েছেন, রাশিয়ার এই প্রস্তাব তখনই গ্রহণ করা যবে যখন রাশিয়ার সেনা ইউক্রেন ছেড়ে চলে যাবে।

আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া

আন্তর্জাতিক মহলও রাশিয়ার এই ঘোষণা এককথায় মেনে নিচ্ছে না। জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক বলেছেন, যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করতে হলে রাশিয়াকে ইউক্রেন থেকে সেনা ফিরিয়ে নিতে হবে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানও এই সিদ্ধান্তের পর রাশিয়ার প্রেসিডেন্টকে ফোন করেন। তিনিও সার্বিকভাবে যুদ্ধবিরতির পরামর্শ দেন। তবে পুটিন এবিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। ক্রেমলিন স্পষ্টই জানিয়েছে, শুধুমাত্র অর্থডক্স ক্রিসমাস পালনের জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য