রংপুরে এক গৃহবধু ধর্ষণ; থানায় অভিযোগ 

রংপুর জেলার সদর উপজেলার সদ্যপুস্করিনী

রংপুর জেলার সদর উপজেলার সদ্যপুস্করিনী

রংপুর জেলার সদর উপজেলার সদ্যপুস্করিনী ইউনিয়নের কাগজীপাড়া গ্রামের মাসুদা বেগম  (৫১) ছদ্দ নামের এক নারীকে ধর্ষণ এর অভিযোগ উঠেছে। একই ইউনিয়নের পালিচড়া হাজীপাড়া কানাই বটতলা গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর পুত্র আরশারফ আলী  কসাই (৪০) ও রংপুর মহানগর পাইকারপাড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম (৪২) এর উপর।

এজাহার কপি থেকে জানান যায় যে, আশরাফ আলী পেশায় একজন কসাই। তিনি পালিচড়া হাটে গরুর মাংস বিক্রয় করকরে। ঘটনার দিন ২৩ জানুয়ারি ২৩ খ্রিঃ সন্ধা আনুমানিক ৬: ১৯ মিনেটে  আসশরাফ আলী বাদীনি মাসুদা (ছদ্দ নাম) কে দোকানের বকেয়া  হিসাব করার জন্য পালিচড়া বাজারে ডাকে। তিনি আনুমানিক সন্ধা সাড়ে সাত ঘটিকায় আশরাফ আলীর দোকানে যান।  আলাপ আলোচনার এক পর্যায়ে মাসুদা (ছদ্দ নাম)  কে আশরাফ আলী ইসলামী মাহফিল শুনতে যাওয়ার প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাবে রাজি না হলে এক প্রকাশ জোড় করেই মাসুদা (ছদ্দ নাম) কে আশরাফ এর ব্যাক্তি মোটরসাইকেল  জোড় পূর্বক নিয়ে যান এবং আরপিএমপি, রংপুর কোথয়ালী থানাধীন পাইকার পাড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে আশরাফুল আলী ও জাহাঙ্গীর আলম মাসুদা (ছদ্দ নাম) কে ধর্ষণ করেন।

ধর্ষিতা মাসুদা (ছদ্দ নাম) বলেন, আমাকে আশরাফুল ও জাহাঙ্গির দুইজনে মিলে জাহাঙ্গীর বাড়িতে হাত বেধে ধর্ষণ করছে। আমি আইনের আশ্রয়ে গিয়েছি। থানায় মামলা করছি। আমি ন্যা বিচারের দাবি করছি।

রংপুর সদর কোথয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ সুশান্ত কুমার সরকার বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি। আমি আমার অফিসারকে অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তারের নির্দেশনা দিয়েছি।

পাঠকের মন্তব্য