A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::open($save_path, $name) should either be compatible with SessionHandlerInterface::open(string $path, string $name): bool, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 132

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::close() should either be compatible with SessionHandlerInterface::close(): bool, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 290

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::read($session_id) should either be compatible with SessionHandlerInterface::read(string $id): string|false, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 164

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::write($session_id, $session_data) should either be compatible with SessionHandlerInterface::write(string $id, string $data): bool, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 233

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::destroy($session_id) should either be compatible with SessionHandlerInterface::destroy(string $id): bool, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 313

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: Return type of CI_Session_files_driver::gc($maxlifetime) should either be compatible with SessionHandlerInterface::gc(int $max_lifetime): int|false, or the #[\ReturnTypeWillChange] attribute should be used to temporarily suppress the notice

Filename: drivers/Session_files_driver.php

Line Number: 354

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 13
Function: __construct

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

A PHP Error was encountered

Severity: 8192

Message: filter_var(): Passing null to parameter #3 ($options) of type array|int is deprecated

Filename: core/Input.php

Line Number: 574

Backtrace:

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/models/PK_projonmo_model.php
Line: 140
Function: ip_address

File: /home/projonmo/public_html/pro_app079/controllers/PK_projonmo.php
Line: 689
Function: web_hit_count

File: /home/projonmo/public_html/index.php
Line: 316
Function: require_once

পাইকগাছায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি

পাইকগাছায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি

গৃহবধূকে ধর্ষণ ও ডাকাতি

গৃহবধূকে ধর্ষণ ও ডাকাতি

পাইকগাছায় চোখেমুখে সুপারগ্লু লাগিয়ে জখম করে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও ডাকাতি

খুলনা জেলার পাইকগাছায় উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, মাদকাসক্ত, ধর্ষণ সহ নানা অপরাধ। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। আর এসব অপরাধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে পুলিশের ব্যাপক তৎপরতা শুরু হলেও থামানো যাচ্ছে না অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। হঠাৎ করেই চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই, ধর্ষণ, চেতনানাশক বৃদ্ধি পাওয়ায় গ্রাম-গঞ্জের সাধারণ মানুষ চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে রয়েছে।

পুলিশ প্রকৃত অপরাধীদের আটক করতে না পারায় তারা বেশ বেপরোয়া হয়ে উঠছে। চুরি-ডাকাতির অধিকাংশই রাতের বেলা বিভিন্ন বাড়ি, প্রতিষ্ঠানে সংঘটিত হচ্ছে। টাকা পয়সা, গহনাসহ বিভিন্ন মালামাল হারিয়ে সর্বশান্ত হচ্ছে।

এরা এতটাই বেপরোয়া যে শারীরিক জখম সহ ধর্ষণের মত ঘটনা ঘটেছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, খুলনার পাইকগাছায় নিজ বাড়িতে এক গৃহবঁধূর চোখে-মুখে সুপার-গ্লু আঠা লাগিয়ে শারীরিক জখমের পর কয়েক দফায় ধর্ষণ করা হয়েছে। পরে  টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে পালিয়ে যায়। ঘটনাটি সোমবার আনুমানিক ভোর রাতে দিকে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী গৃহবধূ কে আশঙ্কা জনক ভাবে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে বর্তমান চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ওই নারীর কন্যা সাংবাদিকদের ঘটনাটি জানান। তার ভাষ্য মতে, গৃহবঁধূর স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। ব্যবসায়িক কাজে অন্য জেলায় গেছেন। রাতে মই দিয়ে বাড়ির ছাদে উঠে শাবল দিয়ে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকে দুর্বৃত্তরা। এ সময় দুই সন্তানের জননী ওই নারীর চোখে-মুখে সুপার-গ্লু লাগিয়ে বেঁধে ফেলা হয়। এরপর তাকে কয়েক দফায় ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষক একজন না একাধিক তা ঘটনার ভয়াবহতায় বুঝতে পারেননি ওই নারী। ধর্ষণের সময় ভুক্তভোগীর বিভিন্ন স্থানে ধারালো কিছু দিয়ে একাধিক আঘাত করা হয়। তার হাতে, কানে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়।

ভুক্তভোগীর স্বামী জানান, প্রতিবেশীরা টের পেয়ে বাড়িতে এসে আমার স্ত্রীকেকে আহত অবস্থায় পান। তারা আমাকে কে খবর দেন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিকভাবে এক জোড়া কানের দুল, নগদ দুই লাখ টাকা নিয়ে গেছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরএমও সুমন রায় বলেন, ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে একজন নারী ভর্তি হন। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে।

জেলা সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (ডি সার্কেল) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, 'আপনারা যতটুকু শুনেছেন আমরাও তাই। আমি ঘটনাস্থলে আছি। যেহেতু ভুক্তভোগীর সঙ্গে কথা বলা যাচ্ছে না, তাই ধর্ষণ কি না এখনই বলা যাচ্ছে না। আগে তার সুচিকিৎসা জরুরি। সেটা নিশ্চিত করা হচ্ছে। আসামি যেই হোক অবশ্যই গ্রেফতার করা হবে।'

এদিকে, গত বুধবার গভীর রাতে কে বা কারা  উপজেলার ভৌরবঘাটা রামচন্দ্র নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অফিস সহ ৪টি শ্রেণি কক্ষের ১৩ টি তালা ভেঙ্গে অফিসের আসবাবপত্র, কাগজপত্র তছনছ, ২০ টি সিলিং ফ্যান, ২২টি পানির ট্যাব সহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়।

আবার, গত সোমবার রাতে উপজেলার গোপালপুর গ্রামের সহকারী শিক্ষক এস এম আমিনুর রহমান লিটু'র (৪০) নিজ বাড়িতে চেতনা নাশক ঔষুধ মেশানো খাবার খাইয়ে দুর্বৃত্ত কর্তৃক নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার সহ সর্বস্ব লুটে নেয়ার মত ঘটনা ঘটে। 

রাড়ূলী ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি শুনেই তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। ঘটনাটি অমানবিক এবং দুঃখজনক। জড়িতদের গ্রেফতার পূর্বক কঠিন শাস্তির দাবী জানাই।

থানা অফিসার ইনচার্জ মো. ওবাইদুর রহমান বলেন, গৃহবঁধূকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় পাওয়া যায়। নির্যাতন হয়েছে কিনা বা সুপারগ্লু আঠা দিয়েছে কিনা এখনই বলা যাচ্ছে না। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, বিষয়টি নিয়ে উচ্চ পর্যায় তদন্ত শুরু হয়েছে। অতি দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার ইকবাল মন্টু বলেন, চুরি-ডাকাতি আর চেতনানাশকের মত ঘটনা তো প্রায়ই শোনা যাচ্ছে। অন্য দিকে পুলিশও তো বসে নেই। পুলিশকে সন্ধ্যার পর পর বিভিন্ন রোডে ডিউটি করতে দেখা যায়। তারমধ্যে চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনাও ঘটছে। সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। অপরাধীদের ব্যাপারে পুলিশকে সহযোগিতা করতে হবে। শুধু পুলিশের ওপর ভর করে বসে থাকলে হবে না।

   


পাঠকের মন্তব্য