আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে জমি জবর-দখলের চেষ্টা

আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ

আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ

পাইকগাছায় আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি উপজেলার কুলেশ্রীকণ্ঠপুর মৌজায়। আদালতে এম আর ১০৫/২৪ মামলা চলমান। আদালতের মামলা সুত্রে জানা যায়,পাইকগাছা উপজেলার কুলেশ্রীকণ্ঠপুর মৌজায় এস এ ৪৮৬ নং খতিয়ানের বিভিন্ন দাগে ১০.২৬ একর সম্পত্তির রেকর্ডীয় মালিক শ্রীকণ্ঠপুর গ্রামের সোহেল উদ্দিন গাজীর পিতা মৃত করিম গাজী ও তার ভ্রাতা।  

দুই ভাই উক্ত সম্পত্তি বংশক্রম অনুসারে চাষবাদ করে ভোগ দখল করে আসছে। তাদের মৃত্যুর পর ওয়ারেশ সুত্রে সোহেল উদ্দিন গংরা পৈত্রিক সম্পত্তি হিসাবে ভোগ দখল করে আসছে। বর্তমান সেটেলমেন্ট জরিপেও তাদের নামে বি আর এস ১১৯৮ নং খতিয়ানে উক্ত ১০.২৬ একর জমি রেকর্ড প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু উক্ত সম্পত্তি জবর দখলের জন্য দীর্ঘ দিন ধরে একই গ্রামের মৃত হানেফ সরদারের পুত্র ফিরোজ সরদার, মুকুল সরদার, মৃত এলাহী পাড়ের পুত্র মুজিবর পাড়, মুজিবর পাড়ের পুত্র হাফিজুল, নিজামরা পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। সোহেল উদ্দিন গাজী জানান, সি এস ৪০৮ ও এস এ ৪৮৬৷ খতিয়ানের সম্পত্তি আমার পূর্ব পুরুষদের স্বত্ব দখলী, রেকর্ডীয় সম্পত্তি। তাদের মৃত্যুর পর আমরা ওয়ারেশসুত্রে উক্ত সম্পত্তি শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোগদখল করে আসছি। কিন্তু প্রতি ৫ বছর পর পর তারা আমাদের জমি অবৈধ দখলের চেষ্টা করে থাকে। 

উক্ত সম্পত্তি বর্তমান সেটেলমেন্ট জরিপে আমাদের নামে রেকর্ড প্রকাশিত হয়েছে। তাদের হুমকি ধামকির কারণে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী ২৪ তারিখে পাইকগাছা নির্বাহী আদালতে এম আর ১০৫/২৪ নং মামলা দায়ের করি। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে দখল ভিত্তিক স্থিতি অবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন।  কিন্তু প্রতিপক্ষ ফিরোজ সরদার গংরা আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে জমি জবর দখলের হুমকি অব্যাহত রেখেছে। উক্ত মামলা দায়ের হওয়ার পর পাইকগাছা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. পঙ্কজ কুমার ধর ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাড। শেখ তৈয়ব হোসেন নুর নালিশী সম্পত্তি পরিদর্শন করেছেন। সরেজমিনে তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, সোহেল উদ্দিন গাজী গংরা উক্ত সম্পত্তি ওয়ারেশ সুত্রে ৪ টি খন্ডে বিভক্ত করে ধান্য ও মৎস্য চাষ করে ভোগ দখল করছে।

ওসি মো. ওবাইদুর রহমান জানান, আদালত কর্তৃক এম আর মামলা পেয়েছি। শান্তি শৃংখলা বজায় রাখার জন্য উভয় পক্ষের নিকট নোটিশ জারী করা হয়েছে।

   


পাঠকের মন্তব্য