পশুরহাট বসা নিয়ে পুলিশ ও ইজারাদারদের সাথে সংঘর্ষ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পশুর হাট

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পশুর হাট

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পশুর হাট বসানোকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও ইজারাদারের লোকজনে সাথে থাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (১২ জুন) বিকালে এই ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশ সদস্য সহ একাধিক ব‍্যক্তি  আহত হয়েছে । এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দু জনকে আটক করেছে পুলিশ।

হাট ইজারাদারের লোকজন বলেন পুলিশ এসে হাটে মোটা অংকের টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলে তারা হাট বন্ধ করে দেয়।এক পর্যায়ে হাট ইজারাদারের লোকজন ও পুলিশের সংর্ঘ বাধে। পুলিশের অভিযোগ ৯৯৯লাইনে অবৈধভাবে হাট লাগার খবর পেয়ে সেখানে যায়। পুলিশকে দেখে হাট ইজারাদারের লোকজন পুলিশের উপর হামলা চালায়।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, 'দুদিন আগে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার মজুমদার হাটে গরু কেনা-বেচার অনুমতি নিতে আসেন হাট ইজারাদার ওবায়েদুল্লাহ। হাটে গরু কেনা-বেচার অনুমতি নেই জানালে বুধবার সকালে তিনি উচ্চ আদালত থেকে গরু বেচা-কেনার একটি অনুমতি পত্র নিয়ে আসেন। চিঠি পাওয়ার পর সেটি বোঝার জন্য গাইবান্ধার বিজ্ঞ আদালতের পিপির কাছে পাঠিয়ে দেই। এরই মধ্যে হাট থেকে কেউ একজন ট্রিপল নাইনে ফোন করেন। ফোন পেয়ে পুলিশের একটি গাড়ি সেখানে গিয়ে হাটে আপাতত গরু বেচা-কেনা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলে ইজারাদারের লোকজনের সঙ্গে পুলিশের কথা-কাটাকাটি হয়। 

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব আলম বলেন, হাট ইজারা দেওয়া বা হাট বন্ধ করবে ইউএনও। আমরা ট্রিপল নাইন থেকে ফোন পেয়ে ওই হাটে যাই। সেখানে ইউএনওর অনুমতি নিয়ে হাট পরিচালনা করতে বললে ইজারাদারের লোকজন হৈ দিয়ে পুলিশের উপর আক্রমণ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে তিন রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। বর্তমানে সেখানকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।পরবর্তীতে তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে'।

   


পাঠকের মন্তব্য