ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

লতা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য পুলকেশ রায়

লতা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য পুলকেশ রায়

পাইকগাছায় লতা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য পুলকেশ রায় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এর দায়িত্বে থাকাকালীন সরকারি ট্যাংকি বিক্রি, সরকারি রাস্তার ইট তুলে বিক্রয়, বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাৎ সহ ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার দপ্তরে ওই  ইউনিয়নের ১০ জন ইউপি সদস্য এসকল অভিযোগ লিখিতভাবে দায়ের করেছেন। অভিযোগে প্রকাশ উপজেলার লতা ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং  ওয়ার্ড সদস্য পুলকেশ রায়। 

বিগত ২০২৩ সালে বর্তমান লতা ইউপি চেয়ারম্যান কাজল কান্তি বিশ্বাস সাময়িক বরখাস্ত থাকেন। সেই সময় লতার ৫নং ওয়ার্ড সদস্য পুলকেশ রায় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। এসময় তিনি ৭৬টি পানির ট্যাংকি প্রদান কালে ৬ থেকে ৮ হাজার টাকা আদায় করেন। রাস্তা সংস্কারের নামে প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তার ৮০ হাজার ইট তুলে অন্য কাজে লাগিয়ে সেই টাকা আত্মসাৎ করেন। ইউনিয়ন পরিষদের সামনে পাকা স্টেজ নির্মাণের জন্য ২ লাখ ৩৪ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। যার মধ্যে সাবেক সংসদ সদস্য ১লাখ টাকা প্রদান করেন। বাহিরবুনিয়া মসজিদ সংলগ্ন ব্রীজের বিপরীত কাটামারি রাস্তা সংস্কারের ১ লাখ টাকা ও কাঠামারি বাজার খেয়াঘাট সংলগ্ন রাস্তা সংস্কারের বরাদ্দকৃত টাকা আত্মসাৎ করেছেন মর্মে অভিযোগে প্রকাশ। 

গতকাল বৃহস্পতিবার এব্যাপারে ১০ জন ইউপি সদস্য বাবলু সরদার, শওকত হাওলাদার, স্বপন কুমার মন্ডল, আজিজুল বিশ্বাস, রিনা পারভীন, বিজন কুমার হালদার, কুমারেশ মন্ডল, চম্পা বেগম, ফেরদৌস ঢালী ও মঙ্গল মন্ডল  উপজেলা নির্বাহী অফিসার দপ্তরে এ অভিযোগ করেন। চেয়ারম্যান কাজল কান্তি বিশ্বাস বলেন, কেউ দরখাস্ত করেছে কিনা তা আমার জানা নেই। যদি কেউ অন্যায় করে সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য পুলকেশ রায় পুলকেশ রায় বলেন, আমার ওয়ার্ডে বরাদ্দ একটু বেশি হওয়ার কারণে আমার উপর ঈর্ষান্বিত হয়ে অভিযোগ করছে। আমি কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি করিনি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহেরা নাজনীন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

   


পাঠকের মন্তব্য