দমেনি এসআই জাকির; সাংবাদিক ও স্ত্রীকে বিপদে ফেলার হুমকি

এসআই জাকির হোসেন জয়

এসআই জাকির হোসেন জয়

গত (২৬ জুন) পরকীয়ার নেশায় পুলিশের এসআই এবং (৩০ জুন) এসাই জাকির কত সম্পদের মালিক ? শিরোনামে ২টি সংবাদ প্রচার হয় 'প্রজন্মকন্ঠ ও দূরবীন নিউজ' এর অনলাইনে। সংবাদ প্রচারের পর বুধবার (৩ জুলাই) এসআই জাকির হোসেনের স্ত্রী রোকসানা হোসেন সুমি বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়াটার্স এ পুলিশের মহাপরিদর্শক বরাবর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযোগের পর ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রী রোকসানা হোসেন সুমি ও সাংবাদিক মাসুম আহমেদ মীরাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার ও বিপদে ফেলার হুমকি দিয়েছেন এসআই জাকির হোসেন জয়। 

অভিযোগ সূত্রে, জাকির হোসেন জয়' স্ত্রী ও প্রাপ্তবয়স্ক তিন ছেলে মেয়ে থাকা সত্বেও নারী কেলেঙ্কারিতে স্ত্রীর হাতে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়েন গলাচিপার একটি হোটেলে। বাড়ি ফিরে স্ত্রী রোকসানা হোসেন সুমি'কে শারীরিক মানসিকভাবে নির্যাতন চালান। এবং এর কিছুদিন পরে ওই নারীকে বিয়ে করেন। বিচারের জন্য স্ত্রী সুমি ভোলা জেলা পুলিশ সুপার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেয়ায় ক্লোজড করে শশীভূষণ থানা থেকে ভোলা পুলিশ নাইনে সংযুক্ত করেন৷ 

এছাড়াও ভোলা জজ কোর্টে যৌতুক নির্যাতন আইনের ৩ ধারায় মামলা নং- সিআর ২/২৪, ও নারী নির্যাতন দমন আইন মামলা নং- জি.আর ১৬১/২০২৪ দায়ের করলে কিছুদিন পরে এসআই জাকির তার পরিবারসহ সুমিকে প্রতিশ্রুতি দেয় যে ২য় স্ত্রী রিমিকে তালাক দিবেন জাকির। পরে এ্যাডভোকেট মনিরুজ্জামান এর মাধ্যমে তালাকের ব্যবস্থা করলে জাকির ২য় স্ত্রীকে তালাক দেন এবং আপোষ মীমাংসার মধ্যদিয়ে মামলাগুলো তুলে নেয় প্রথম স্ত্রী সুমি। মামলা তুলে নেয়ার কিছুদিন কাটতেই পুনরায় তালাকপ্রাপ্ত মেয়ের সাথে দেখা ও বিভিন্ন হোটেলে রাত্রী যাপন করেন। প্রথম স্ত্রী সুমি শর্তের কথা বললে তাকে শারীরিক ও মানষিকভাবে নির্যাতন করেন এসআই জাকির৷

বিতর্কের ঝরেও কোনভাবেই থামছে না এসআই জাকির হোসেন। পটুয়াখালীতে হাজিরা দিতে গিয়ে গত কয়েকদিন যাবত তালাকপ্রাপ্ত ওই নারীকে সাথে নিয়ে হোটেলে রাত্রিযাপন ও অবৈধ কার্যকালাপ করেই চলেছেন। এদিকে স্ত্রী সুমি পুলিশ হেডকোয়াটার্স এ অভিযোগ দিয়েছেন শুনে তাকে এবং তার বাবাকে জড়িয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও তালাক দেয়ার হুমকি দেন এসআই জাকির হোসেন। এছাড়াও সংবাদ প্রচারের পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাংবাদিক মাসুম আহমেদ মীরাকে নিয়ে অপপ্রচার ও বিপদে ফেলার হুমকি দিয়েছেন এসআই জাকির হোসেন।

রোকসানা হোসেন সুমি প্রজন্মকন্ঠ নিউজকে জানান, হাজিরা দেয়ার জন্য ৯ থেকে ১০ দিন ছুটি পেয়েছেন। পটুয়াখালীতে গিয়ে তালাকপ্রাপ্ত ওই নারীকে সাথে নিয়ে বিভিন্ন হোটেলে রাত্রি যাপন এবং অবৈধভাবে মেলামেশা করছেন তারা। আমি পুলিশ হেডকোয়াটার্স এ অভিযোগ দেয়ার পরে আমাকে এবং আমার বাবাকে জরিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও তালাক দেয়ার হুমকি দেন এসআই জাকির।

সাংবাদিক মাসুম আহমেদ মীরা জানান, পরকীয়ার নেশায় পুলিশের এসআই এবং এসাই জাকির কত সম্পদের মালিক? শিরোনামে ২টি সংবাদ প্রচারের জের ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার ও বিপদে ফেলার হুমকি দিয়েছেন জাকির। এর সকল প্রমাণ আমার কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। এবং এসআই জাকির হোসেন'কে নিয়ে অনুসন্ধানের শুরু থেকেই তার বিতর্কিত সকল কর্মকান্ডের তথ্য আমরা সংগ্রহ করতে পেরেছি। খুব শীঘ্রই সেগুলো প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে এসআই জাকির হোসেনকে মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

   


পাঠকের মন্তব্য