সিনহা হত্যা : প্রদীপ-লিয়াকতসহ ৭ পুলিশ বরখাস্ত

সিনহা হত্যা : প্রদীপ-লিয়াকতসহ ৭ পুলিশ বরখাস্ত

সিনহা হত্যা : প্রদীপ-লিয়াকতসহ ৭ পুলিশ বরখাস্ত

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার সাত পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাঁদের ওই হত্যা মামলায় জামিন না-মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়ার পর শুক্রবার (৭ আগস্ট) বরখাস্ত করা হয়।

বরখাস্ত হওয়া সাত পুলিশ সদস্য হলেন টেকনাফ থানার প্রত্যাহার হওয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ, সিনহাকে গুলি করা পুলিশের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, কনস্টেবল সাফানুর করিম, উপপরিদর্শক নন্দ দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন এবং সহকারী উপপরিদর্শক লিটন মিয়া।

জেলা পুলিশ সূত্রে আরো জানা গেছে, টেকনাফ থানার  ৯/২০২০,  সিআর  : ৯৪/২০২০ (টেকনাফ) নম্বর মামলায় টেকনাফের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কক্সবাজার জেলা পুলিশের সদস্য সাত আসামির জামিন আবেদন নাকচ করে তাঁদের জেলে পাঠানোর বিষয়টি অবহিত হওয়ার পর তাঁদের বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
 
গত ৩১ জুলাই খুন হওয়া মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস (৪২) বাদী হয়ে গত ৫ আগস্ট টেকনাফ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা করেন। এতে চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া প্রদীপ কুমার দাশ, লিয়াকত আলীসহ ৯ জনকে আসামি করা হয়।

আদালত বৃহস্পতিবার তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাবের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া সাত আসামির মধ্যে ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকত ও উপপরিদর্শক নন্দদুলাল রক্ষিতকে সাত দিনের রিমান্ডে ও অপর চার পুলিশকে দুদিন পর্যন্ত কারাফটকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ক্সবাজারের টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর পুলিশ তল্লাশিচৌকিতে গত ৩১ জুলাই রাতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান (৩৬)। 

পাঠকের মন্তব্য