প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি; চার নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি; বিএনপি ৪ নেতার বিরুদ্ধে মামলা 

প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি; বিএনপি ৪ নেতার বিরুদ্ধে মামলা 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হত্যার ইঙ্গিতপূর্ণ বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু ও সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু সহকারে চার নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়েছে। 

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ (আমলি আদালত বোয়ালিয়া) মামলাটি আমনে নেন। প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা এবং সরকার উৎখাতের হুমকি পরিপ্রেক্ষিতে এই মামলা করা হলো। 

মামলার আসামী অন্য দুইজন হলেন- রাজশাহী নগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শফিকুল হক মিলন। মামলা দায়েরের সময় আদালত চত্বরে উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহীর সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ দলের শীর্ষ নেতারা।

রাজশাহীর সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, মিনু সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা ও সরকার উৎখাতের হুমকি দিয়েছেন। তাঁরা আইনি প্রক্রিয়ায় এর বিচার চান।এর পাশাপাশি সাংগঠনিকভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যেতে চান। এর আগে ৯ মার্চ রাজশাহীর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল জলিলের কাছে পেনাল কোডের ১২৩ (এ)/ ১২৪ (এ)/৩২ ধারায় বিএনপির এই চার নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ জমা দেন অ্যাডভোকেট মুসাব্বিরুল ইসলাম।

সোমবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিএনপির চার নেতার নামে মামলার অনুমোদন দেয়।

প্রসঙ্গত, গত ২ মার্চ বিকেলে নগরীর মাদ্রাসা মাঠ সংলগ্ন একটি কনভেনশন সেন্টারে রাজশাহী নগর বিএনপির আয়োজনে বিভাগীয় সমাবেশ হয়। নগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সভাপতিত্বে ওই সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের সঞ্চালনায় ওই সমাবেশে বক্তব্য দেন মিজানুর রহমান মিনু। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে মিনু বলেন, ‘আজ রাত, কাল আর সকাল নাও হতে পারে। ‘৭৫ মনে নাই?’ সেই সমাবেশে মিনু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেও কটাক্ষ করে বক্তব্য দেন। 

পাঠকের মন্তব্য