কুড়িগ্রামে আইনজীবীর সাথে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে হিরোইনসহ আটক

কুড়িগ্রামে আইনজীবীর সাথে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে হিরোইনসহ আটক

কুড়িগ্রামে আইনজীবীর সাথে দুই মাদক ব্যবসায়ীকে হিরোইনসহ আটক

কুড়িগ্রামে এক আইনজীবীর সাথে দুই মাদক ব্যবসায়ীসহ  ৩ জনকে  ১০ গ্রাম হিরোইনসহ আটক করেছে পুলিশ। রবিবার গভীর রাতে (পৌনে ২ টার দিকে) কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সামন থেকে তাদের আটক করে টহল পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, এডভোকেট আলমগীর হোসেন এবং তার সহযোগী আসাদুজ্জামান সবুজ ও মোস্তাক হোসেন। আলমগীর হোসেন পৌর এলাকার কালে মৌজার প্রফেসর পাড়ার মৃত ওসমান গণির ছেলে। সে কুড়িগ্রাম জজ কোর্টের আইনজীবী ও সাবেক সহকারী পিপির দায়িত্বও পালন করেছিলো বলে জানায় পুলিশ। অপর আসামি আসাদুজ্জামান সবুজ কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা পরিষদ এলাকার মৃত মাহবুব জামান তোতার ছেলে এবং মোস্তাক হোসেন ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বাগভান্ডার এলাকার মৃত নাজমুল হকের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, রবিবার গভীর রাতে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের মূল ফটকের কাছ থেকে এই তিনজনকে মাদক গ্রহণকারীকে টালমাটাল   অবস্থায় আটক করা হয়। আটককৃতদের দেহ তল্লাশি করে ১০ গ্রাম হেরোইন সহ একটি মটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়। এদের মধ্যে সবুজ পেশাদার মাদকসেবন ও ব্যবসায়ী। সবুজ এর আগে  ইয়াবা ও বিভিন্ন মাদক সহ একাধিক বার পুলিশের হাতে গেফতার হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। 

আলমগীর হোসেন নিজেকে কুড়িগ্রাম জজ কোর্টের আইনজীবী দাবি করেছেন। এর আগে এরকম নানান অপকর্মের কারনে আলমগীর কে জেলা আইনজীবী সমিতি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। আর মোস্তাক হোসেন নিয়মিত মাদক পাচারের সাথে জড়িত। 

কুড়িগ্রাম সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইন চার্জ সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) নাজমুস সাকিব সজীব জানান, আটক তিন জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে। তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হবে। আইনজীবী সহ আটক মাদকাসক্তদের বিরুদ্ধে দ্রষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবি জানিয়েছেন জেলার  সচেতন সমাজ।

কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা বলেন মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে জেলা পুলিশ প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন। মাদকের সঙ্গে যুক্ত যেই হোক তার নিস্তার নেই। দল বা পেশা নয়, পুলিশের কাছে তাদের পরিচয় হচ্ছে শুধুই মাদকব্যবসায়ী। নিয়মিত তথ্য দিয়ে পুলিশ কে সহায়তা করুন।  

পাঠকের মন্তব্য