কালবৈশাখী ঝড় কেড়ে নিল কৃষকের স্বপ্ন

কালবৈশাখী ঝড় কেড়ে নিল কৃষকের স্বপ্ন

কালবৈশাখী ঝড় কেড়ে নিল কৃষকের স্বপ্ন

একহাতে নিজের জমিতে লাগানো ভুট্টার গাছ, অপর হাতটি মাথায় দিয়ে বসে আছেন এক কৃষক। চোখের সামনে নিজের স্বপ্ন ভেঙে নিয়ে গেল কালবৈশাখী ঝড়। নিজের চোখে দেখলেও যেন কিছু করার ছিল না তার। যেন নিরুপায় হয়ে বসে ছিলেন তিনি।

বলছিলাম ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের আদর্শ গামের কৃষক মানিক হোসেনের কথা। শুধু কৃষক মানিক হোসেন নয়, জেলার বিভিন্ন এলাকায় অনেক কৃষকেরই ভুট্টাসহ কিছু ফসল নষ্ট হয়েছে।

প্রায় আড়াই বিঘা জমিতে কৃষক মানিক হোসেন লাগিয়ে ছিলেন ভুট্টা। আর কিছু দিন হলেই যেন সেই ভুট্টা বিক্রি করে পরিবার নিয়ে খুশিতে থাকতেন তিনি। কিন্তু শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড় তার ভুট্টার ক্ষতি করে চলে গেছে।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) সরেজমিনে দেখা যায়, নিজের জমিতে লাগানো নষ্ট হয়ে যাওয়া ভুট্টা নিয়ে জমির মাঝে বসে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন কৃষক মানিক। নিরুপায় হয়ে জমিতে লাগানো ভুট্টার গাছ তুলছেন তিনি। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, জেলায় ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে শুক্রবার রাতের বৈশাখী ঝড়ে ১৬৪ হেক্টর জমির ভুট্টার গাছ মাটিতে পড়ে গেছে।

জগন্নাথপুর ইউনিয়নের আদর্শ গ্রামের কৃষক মানিক হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, দুই বিঘা জমিতে ভুট্টার আবাদ শুরু করেছি। এখানে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। ভেবেছিলাম এবার ভুট্টা বিক্রি করে পরিবার নিয়ে ভালোভাবে ঈদ করব। কিন্তু স্বপ্ন যেন উড়ে নিয়ে গেল কালবৈশাখী ঝড়।

একই এলাকার কৃষক আরিফ হোসেন জানান, আমি ১ বিঘা জমিতে ভুট্টা লাগিয়ে ছিলাম। গতকাল রাতে কালবৈশাখী ঝড় সব ধ্বংস করে দিয়ে গেল আমার। লাভ তো দূরে থাক মূলটাই আসবে না।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কৃষিবিদ আবু হোসেন বলেন, শুক্রবার রাতে মৌসুমের প্রথম ঝড় বয়ে গেছে। এতে জেলায় ভুট্টা, বোরো ধানসহ কিছু ফসল হেলে পড়েছে। এর মধ্যে ১৬৪ হেক্টর জমির ভুট্টা হেলে পড়েছে। তবে আমরা আশা করছি, কৃষকদের তেমন ক্ষতি হবে না।

পাঠকের মন্তব্য