আওয়ামী সেলিব্রিটিদের সমালোচনায় কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর 

কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর 

কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর 

কেন্দ্রীয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০১৬-২০১৯ মেয়াদ থেকে বিভাগীয় উপ-কমিটি গঠনের রেওয়াজ শুরু হয়। ২০১৯-২০২১ মেয়াদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক উপ-কমিটিসহ বেশ কয়েকটি উপকমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। 
 
সংস্কৃতি বিষয়ক উপ-কমিটিসহ বেশ কয়েকটি উপকমিটিতে দেখা যায়, প্রথমবারের মতো সেলিব্রিটিদের অনেকেই পদ পদবি পেয়েছেন। উল্লেখযোগ্য তাঁদের মধ্যে রয়েছেন অভিনেতা ফেরদৌস ও জায়েদ খানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের তারকারা। যে সেলিব্রিটিরা এর আগে অনেকেই রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন না। যদিও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটিতে জায়গা করে নিয়ে অনেক সেলিব্রিটিরা নতুন করে রাজনীতিতে যুক্ত হয়েছেন। দলে জায়গা করে নেওয়া নব্য আওয়ামী লীগের সেলিব্রিটিরা অনেকেই দলীয় ইস্যুতে প্রচার প্রচারণায় সোচ্চার নয়; এমনকি 'বঙ্গবন্ধু'র ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদেও কেউ টু শব্দ আওয়াজ করেননি। 
 
সেই সকল নব্য আওয়ামী লীগের সেলিব্রিটিদের ইঙ্গিত করেই জনপ্রিয় পপ-ধারার সঙ্গীত শিল্পী ও অভিনেতা আসিফ আকবর রবিবার (২৫ এপ্রিল) তাঁর ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে একটি ইমেজ আকারে একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস শেয়ার করেছেন। যাতে লেখা রয়েছে-  

'বঙ্গবন্ধু'র ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হলো। বাংলাদেশের নব্য আওয়ামী সেলিব্রিটিদের কোন প্রতিবাদ চোখে পড়লো না। ক্ষমতার হালুয়া রুটির ভাগ আর সেলফি'র মজা সবসময় নব্য অনুপ্রবেশকারীরাই নেয়। ত্যাগী কর্মী কাঁদে নিভৃতে। সাধু সাবধান...' 

আসিফ আকবর ফেসবুক স্ট্যাটাসের কমেন্ট বক্স জুড়ে দেখা গেছে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মন্তব্যের ঝড়। 

Abu Shaid Abushaid নামে একজন মন্তব্য করেছেন- আপনি তো আর আওয়ামিলীগের কেউ না আপনার এমন আব্যেগের কারনটা কি জানতে পারি। তবে এটা সত্য আওয়ামিলী যা হারাচ্ছে তা ত্যেগী আর যা পাচ্ছে তা শুভিদাবাদি।

Raju Riyad নামে একজন মন্তব্য করেছেন- নব্যরা এসেছে দলের পক্ষ থেকে সুবিধা অর্জন করতে এরা সাইনবোর্ড ব্যবহারকারী, দল পাল্টালে এরাও পাল্টে যাবে, আওয়ামী লীগ নয় যে কোন দলের জন্য এই নব্য দলকারীরা ভয়ঙ্কর, এদের চিহ্নিত করে রাখতে হবে না হলে যুগেযুগে ত্যাগীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেই হবে।

Alhaj Hosen নামে একজন মন্তব্য করেছেন- আপনাকে আওয়ামী লীগ রাজনীতি করতে বলি না, শুধু বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বাঙালি জাতির উদ্দেশ্য একটা গান গাইবেন, এটা আমার অনুরোধ নয়, আপনার আওয়ামীপন্থী ভক্ত বৃন্দদের সকলের চাওয়া। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু। 

Md Saddam Hossain নামে একজন মন্তব্য করেছেন- আপনি তো বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিনের শুভেচছা ও জানাননি। ওই ইস্যুতে তাদের অনেকেই প্রতিবাদ করতে দেখিছি। বাট আপনাকে দেখিনাই। ওই সময় তো একটা পোস্ট ও দেননাই। কারন ওই সময় পরিবেশ অনুকূলে ছিলনা। এখন অনুকূলে সব হেফাজতিরা জেলখানায় তাই আপনি এত মাস পরে পোস্ট দেওয়ার সাহস পাচ্ছেন। আপনি তো মিয়া সবচেয়ে বড় হিপোক্রেট।
 
Alamgir Hosen নামে একজন মন্তব্য করেছেন- ভাই, একদম খাঁটি কথা বলেন সব সময় কাউকে পরোয়া না করে এজন্যই ভালোলাগে আপনাকে কিন্তু হক কথা বললেত আপনাকে গেপ্তার করার সম্বাবনা কারন অনেকের এলার্জি আছে হক কথা পছন্দ করেনা।
  
নন্দিত কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য  ছিলেন। কুমিল্লায় একটি অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা হিসেবে পরিচয় করিয়ে না দেওয়ার জের ধরে হামলা, মারপিট ও মামলা করে দলের সিনিয়র নেতাদের বিরাগভাজন হওয়ার পর পদত্যাগে বাধ্য হন আসিফ আকবর। এখনো তিনি নিজেকে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের আদর্শের সৈনিক হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। 

ফেসবুক স্ট্যাটাস লিঙ্ক : ASIF 

পাঠকের মন্তব্য