আমিনুর রহমান এর কবিতা : “মহামারীকে তুলবো চিতায়” 

আমিনুর রহমান এর কবিতা : “মহামারীকে তুলবো চিতায়” 

আমিনুর রহমান এর কবিতা : “মহামারীকে তুলবো চিতায়” 

“মহামারীকে তুলবো চিতায়” 
আমিনুর রহমান

দাওনি তিস্তার পানি-
এতে মোরা মরিনি-
তোমার দেশে বেশুমার প্রাণহানী-
তাতে মোদের চোখে আসে পানি।

গড়ে তুলোনি অক্সিজেনের মজুদ-
তোমার ভান্ডারে পরমাণু বোমা সহ
হরেক কিসিমের গোলাবারুদ।

ঐ গোলাবারুদ আসছে না কাজে-
স্বীকার করে নাও,
তোমার সিদ্ধান্ত বাজে।

ভাইরাসকে করতে পাওনা বিনাশ-
চিতার সামনে সারি সারি লাশ-
সেই লাশ হয়,
ক্ষুধার্ত কুকুরের মুখের গ্রাস।

নিভে না চিতার আগুন-
লাশ পুড়তে হয় দ্বিগুনের পর দ্বিগুন।

জমদূত যেন আত্মভোলা-
মৃত্যুর দুয়ার খোলা-
হৃদয়ে শোকের দোলা-
এত্তো মৃত্য কি যায় ভোলা?

ভুলে যাও জাত-পাত-
মেলাও সবাই হাত-
এক পাতে খাও ভাত-
হয়ে যাও এক জাত।

মহামারী করিও না বাড়াবারী
জগতটাকে আর বানাবে না মৃত্যুপুরী-
চলে যাও তাড়াতাড়ি-
এতো, এতো মৃত্যুর শোক,
আর সইতে না পারি।

আজ মানুষ বড় অসহায়-
সৃষ্টিকর্তার কাছে চায় সহায়-
মহামারী নাও বিদায়-
তোমার জন্য যদি,
আর একটি প্রাণ যায়-
তবে মহামারীকে তুলবো চিতায়-
ভষ্ম করবো তোমায়।

পাঠকের মন্তব্য