বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী আর নেই 

বাংলা একাডেমির পরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী আর নেই 

বাংলা একাডেমির পরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী আর নেই 

সোমবার (২৫ মে) রাত ১১টার দিকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন (إِنَّا لِلَّٰهِ وَإِنَّا إِلَيْهِ رَاجِعُونَ‎‎‎)। তিনি ২০১৮ সাল থেকে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। 

তার লেখা কাব্যগ্রন্থ : দাও বৃক্ষ দাও দিন, মোমশিল্পের ক্ষয়ক্ষতি, হাওয়া কলে জোড়গাড়ি, নোনা জলে বুনো সংসার, স্বপ্নহীনতা পক্ষে, আমার একজনই বন্ধু, পোশাক বদলের পালা, প্রেমের কবিতা, কৃষ্ণ কৃপাণ ও অন্যান্য কবিতা, সিংহদরজা, বেদনার চল্লিশ আঙুল, ম্রিয়মাণ নয়, বিপ্লব বসত করে ঘরে, ছিন্নভিন্ন অপরাহ্ণ, জয় বাংলা বল রে ভাই, সারিবদ্ধ জ্যোৎস্না, সুগন্ধ ময়ূর লো, নির্বাচিত কবিতা, মুখোমুখি; তুচ্ছ, স্বনির্বাচিত প্রেমের কবিতা, হ্রী, কতো আছে জলছত্র, কতদূর চেরাপুঞ্জি, কাদামাখা পা, ভুলের কোন শুদ্ধ বানান নেই, একা ও করুণা, যমজ প্রনালী, আমার জ্যামিতি, পশ্চিমের গুপ্তচর ও কবিতা সমগ্র। 

তার লেখা উপন্যাস সমূহ : কৃষ্ণপক্ষে অগ্নিকান্ড, পরাজয়। অনুবাদ করেছেন মৌলানার মনঃ রুমীর কবিতা, আত্মজৈবনিক গ্রন্থ লিখেছেন- গ্রন্থ আমার কুমারসহ আরও অসংখ্য বিষয়ে তিনি লিখেছেন। 

কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী  ১৯৪৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ফরিদপুর জিলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক, ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করেন। 

কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজী ২০১৬ সালে একুশে পদক, ২০১০ সালে রুপসী বাংলা পুরষ্কার এবং কবিতালাপ সাহিত্য পুরষ্কার, ২০০৭ সালে বিষ্ণু দে পুরষ্কার, ১৯৯১ সালে বাংলা একাডেমি পুরষ্কার, ১৯৮৯ সালে আলাওল সাহিত্য পুরষ্কার, ১০৮৭ সালে যশোর সাহিত্য পরিষদ পুরষ্কার সহ দেশি-বিদেশী নান পুরষ্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।  

পাঠকের মন্তব্য