Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৬:৪১ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
বাংলাদেশ সরকারের ধারাবাহিকতার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন সৌদি বাদশাহ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফলে দেশের মানুষের জীবনে দিন বদলের যাত্রা শুরু হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী | প্রজন্মকণ্ঠ পুলিশের সঙ্গে কারখানার শ্রমিকরাদের ব্যাপক ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ, আহত ৫০ | প্রজন্মকণ্ঠ গার্মেন্টসের শ্রমিকরা বকেয়া বেতন-বোনাস পরিশোধের দাবিতে সড়ক অবরোধ চলতি সপ্তাহে ভারতের সঙ্গে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ  নির্বাচন ঘিরে সরগরম জোট ভিত্তিক রাজনীতি এরশাদের বিরুদ্ধে করা মঞ্জুর হত্যা মামলার প্রতিবেদন দাখিল, আগামী ১৮ নভেম্বর নির্বাচন সামনে রেখে শিগগিরই সারাদেশে অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ২৮ রানে জয় পেলো বাংলাদেশ  সাম্প্রতিক সৌদি আরব সফর : প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন, আগামীকাল

নিম্নমুখী স্বর্ণের দাম । প্রজন্মকণ্ঠ 


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ৩:২৭ পিএম:
নিম্নমুখী স্বর্ণের দাম । প্রজন্মকণ্ঠ 

ডলারের বিনিময় মূল্য বৃদ্ধিতে নিম্নমুখী হয়ে পড়েছে স্বর্ণের বাজার। গত বুধবার আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যটির দাম কমেছে। ধস কাটিয়ে শেয়ারবাজারে সূচকের ঊর্ধ্বমুখিতাও পণ্যটির বাজারকে নিম্নমুখী করে তুলেছে।

এপ্রিলে সরবরাহের চুক্তিতে স্বর্ণের দাম কমেছে ১ দশমিক ১ শতাংশ। দিন শেষে পণ্যটির দাম আউন্সপ্রতি ১৪ দশমিক ৯০ ডলার কমে ১ হাজার ৩১৪ দশমিক ৬০ ডলারে স্থির হয়। ফ্যাক্টসেটের তথ্য অনুসারে গত ৯ জানুয়ারির পর থেকে এটাই সর্বনিম্ন সমাপনী দাম। একই সঙ্গে শতাংশের হিসাবে গত ২০ নভেম্বরের পর থেকে সর্বোচ্চ দরপতন। এদিন দশমিক ৮ শতাংশ বেড়ে আইসিইতে ডলার সূচকের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ৯০ দশমিক ৩১৫ পয়েন্ট।

আইএনটিএল এফসিস্টোনের পণ্য বাজার পরামর্শক এডওয়ার্ড মেয়ার বলেন, এ অবস্থান থেকে স্বর্ণ কোন দিকে যাবে তা বলা মুশকিল। মঙ্গলবারের পুনরুদ্ধারের পরও যুক্তরাষ্ট্রের স্টক মার্কেটের ধারা এখনো অস্পষ্ট।

তিনি বলেন, আমরা এতটুকু বলতে পারি, শেয়ারবাজারে যখন পতন ঘটছিল, তখন স্বর্ণের বাজারের অবস্থান ভালো ছিল না। তবে মঙ্গলবার শেয়ারবাজার চাঙা হওয়ার পর অনায়াসে স্বর্ণের বাজার খণ্ডিত হতে শুরু করেছে। শেয়ারবাজার স্থিতিশীল হলে স্বর্ণের বাজারে পতনের ঝুঁকি আরো বাড়বে বলা যায়।

সাধারণত ডলার ও স্বর্ণ বিপরীতমুখী আচরণ করে। ডলারের বিনিময়মূল্য কমলে ভিন্ন মুদ্রা ব্যবহারকারীদের জন্য স্বর্ণ তুলনামূলক সস্তা হয়ে ওঠে। এতে চাহিদা বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে পণ্যটির দাম বাড়ে। আবার ডলারের বিনিময়মূল্য বাড়লে স্বর্ণের মতো লভ্যাংশহীন পণ্যে বিনিয়োগ কমে আসে। এতে এসব পণ্যের দাম কমে যায়।

মার্চে সরবরাহের চুক্তিতে রুপার দাম কমেছে ২ দশমিক ১ শতাংশ। এদিন পণ্যটির আউন্সপ্রতি ৩৪ দশমিক ২ সেন্ট কমে ১৬ দশমিক ২৩৮ ডলারে লেনদেন হয়। মার্চে সরবরাহের চুক্তিতে তামার দাম কমেছে ৩ দশমিক ২ শতাংশ। এদিন পণ্যটি পাউন্ডপ্রতি ৩ দশমিক শূন্য ৮৮ ডলারে লেনদেন হয়। এপ্রিলে সরবরাহের চুক্তিতে প্লাটিনামের দাম কমেছে ১ দশমিক ৩ শতাংশ। এদিন পণ্যটি আউন্সপ্রতি ৯৮১ দশমিক ৭০ ডলারে লেনদেন হয়। মার্চে সরবরাহের চুক্তিতে প্যালাডিয়ামের দাম কমেছে ১ দশমিক ৮ শতাংশ। দিন শেষে পণ্যটির ৯৮৪ দশমিক ৫৫ ডলারে স্থির হয়। সমাপনী মূল্য বিবেচনায় পণ্যটির এ দাম গত ডিসেম্বরের প্রথম দিকের পর থেকে সর্বনিম্ন।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top