Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ , সময়- ২:১১ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে রিটের আদেশ আগামীকাল  মনোনয়নপত্র ফিরে পাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন শেখ হাসিনা, ১২ ডিসেম্বর সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য ২০১৫ থেকে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ প্রধান নির্বাচন কমিশনাসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল ভোট প্রচারণায় সোহেল তাজের ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ  মহাজোটের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা । প্রজন্মকণ্ঠ  আওয়ামী লীগ শাসনামলে বাংলাদেশের উন্নয়ন চিত্র দেশের ৫৮টি নিউজ পোর্টালের ওয়েবসাইট বন্ধের নির্দেশ দিলো বিটিআরসি

আইন পড়ে কী হওয়া যাবে না?


অনলাইন ডেষ্ক

আপডেট সময়: ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:৫০ পিএম:
আইন পড়ে কী হওয়া যাবে না?

কেউ এই প্রশ্ন করলে উত্তরের বদলে পাল্টা প্রশ্ন হবে- ‘আইন পড়ে কী হওয়া যাবে না?’ কিছুদিন আগে ‘আমি কেন আইন পড়েছি?’ শিরোনামের এক লেখায় সাবেক প্রধান বিচারপতি মোস্তফা কামালের অমর কথাটি ধার করে বলেছিলাম- ‘আইন পড়া জীবন- একটা আলাদা জীবন’। সেই লেখায় মূলত আইন পড়ার তাত্ত্বিক, মনস্তাত্ত্বিক, আদর্শিক ও চেতনাগত উপযোগিতাসমূহ তুলে এনেছিলাম। আজকের লেখায় আমরা আসলে দেখবো আইন পড়ার প্র্যাকটিক্যাল উপযোগিতা ও একজন আইনের শিক্ষার্থীর ক্যারিয়ারের সুযোগ ও সম্ভাবনাসমূহ। আশা করছি এটি আইনের শিক্ষার্থীদের একটি ক্যারিয়ার গাইডলাইন হিসেবে কাজ দেবেঃ বাংলাদেশে আইনের শিক্ষার্থীদেরকে পরিবারে ও সমাজে অবধারিতভাবে যে অনিবার্য প্রশ্নটির সম্মুখীন হতে হয় তা হচ্ছে- ‘Law পড়বি কি Liar হওয়ার জন্য?’ অর্থাৎ বেশিরভাগ মানুষ ধরেই নেয়- ‘ল’ পড়ে ‘লইয়ার’ বা তাঁদের ভাষায় লাইয়ার (মিথ্যাবাদি) হওয়া ছাড়া আর বুঝি কোন গত্যন্তর নাই। কিন্তু তাঁরা আসলে ‘জানেনা যে তাঁরা জানে না’ (They don’t know that they don’t know)- আইন পড়া একজন শিক্ষার্থীর ক্যারিয়ার পরিধি কতোটা বিস্তৃত ও বৈচিত্র্যময় !
আসুন, তাহলে দেখি-

১/ ‘আইন পড়ে কী হওয়া যাবে না?’- এটির অস্তিবাচক রূপ হচ্ছে আইন পাশ করে আইন সংশ্লিষ্ট বা আইন বহির্ভূত সব কিছুই আপনি হতে পারবেন। ‘সবকিছু’ মানে আক্ষরিক অর্থেই ‘সবকিছু’। আইন পড়ে কেউ আইনজীবী হতে না চাইলেও তাঁর জন্য সরকারি- বেসরকারি চাকুরির দুনিয়া খোলা। অর্থাৎ, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থীরা যে সব চাকুরিতে আবেদনের যোগ্য- আইনের একজন শিক্ষার্থী সেসব পদে অনায়াসেই আবেদন করতে পারে, প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণ হয়ে যোগ দিতে পারে।

২/ বিসিএসঃ আইন থেকে পাশ করে অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের মতোই আপনারা বিসিএস এর সমস্ত ক্যাডার যেমন- ফরেন সার্ভিস, প্রশাসন, পুলিশ, কাস্টম, আনসার ইত্যাদি সব নন- ট্যাকনিক্যাল ক্যাডারে একজন ফার্স্ট ক্লাস গেজেটেড অফিসার হিসেবে নিয়োগ পেতে পারেন। বিসিএস এর কোন নন- ট্যাকনিক্যাল ক্যাডারেই নিয়োগ পাওয়ার জন্য অনার্স- মাস্টার্সের বিষয় আলাদা শর্ত নয়। আইন থেকে পাশ করে বিসিএস এর বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগ লাভের উদাহরণ ভুরিভুরি।

৩/ সহকারী জজ/ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটঃ কিন্তু আইনের স্নাতকদের জন্য আলাদাভাবে আছে ‘জুডিসিয়াল সার্ভিস’ অর্থাৎ, সহকারী জজ ও জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে ‘সরকারি ফার্স্ট ক্লাস গেজেটেড অফিসার’ হওয়ার সুযোগ। বিসিএস ক্যাডারের তুলনায় এখানে পরীক্ষার প্রতিযোগিতা কম কিন্তু বেতন বেশি (৩০% বর্ধিত বিচারিক ভাতা) ! এই পদে নিয়োগলাভের সুযোগ শুধুই আইনের শিক্ষার্থীদের জন্য সংরক্ষিত।

৪/ শিক্ষকতাঃ ভালো একাডেমিক ফলাফল থাকলে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ছাড়াও প্রায় ৫০ টির কাছাকাছি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে আইনের একজন সদ্য মাস্টার্সধারী ‘লেকচারার’ হিসেবে উচ্চ বেতনে যোগ দেওয়ার সুযোগ পায়। আইনের ভালো ফলধারীর জন্য বিকল্প অজস্র ক্যারিয়ার সম্ভাবনার কারনে প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগে উপযুক্ত শিক্ষক সংকট লেগেই থাকে। তাই একাডেমিক ফলাফল মোটামুটি ভালো হলে এবং শিক্ষকতার ন্যূনতম ১/২ বছরের অভিজ্ঞতা ও গবেষণা প্রবন্ধ থাকলে মোটা অংকের বেতনের চাকুরির পেছনে আপনাকে দৌড়াতে হবেনা, চাকুরিই আপনাকে খুঁজে নেবে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নয় বরং আপনিই সিদ্ধান্ত নেবেন- কোথায় ও কতো বেতনে জয়েন করবেন ! এই সেক্টরে চাহিদা এমনই বেশি যে অনার্সে ভালো ফল থাকলে মাস্টার্সের রেজাল্ট প্রকাশ হওয়ার আগেই অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি আইনের যোগ্য প্রার্থীকে ‘অগ্রীম এপয়েন্টমেন্ট লেটার’ দিয়ে বুকড করে রাখে ! বুঝেন অবস্থা ! এছাড়াও পাবলিক ও প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির ‘ল অফিসার’ হিসেবে যোগ দেওয়ার সুযোগ তো বহাল আছেই!

৫/ সেনাবাহিনী, নৌ বাহিনী, বিমান বাহিনীঃ একজন আইনের শিক্ষার্থী লেফটেন্যান্ট, সাব লেফটেন্যান্ট, ফ্লাইং অফিসার হয়ে কমিশন্ড অফিসারের পদমর্যাদায় সেনা, নৌ কিংবা বিমানবাহিনীতে স্বল্প মেয়াদী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ‘জাজ এডভোকেট জেনারেল’ (JAG) বিভাগে যোগ দিতে পারেন। সামরিক আইন-আদালত ও সামরিক বিচার নিয়ে এদের কাজ কর্ম। এই সুযোগ শুধু আইনের শিক্ষার্থীদের !

৬/ ব্যাংক, বীমা, কোম্পানি, শিল্প ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানঃ অনেকের ভুল ধারণা আছে ব্যাংকার হওয়ার জন্য বিবিএ, এমবিএ অত্যাবশ্যক। সত্য নয়। বাংলা, ইংরেজি, অর্থনীতি বা অন্যান্য বিষয়ের মতো আইন থেকে পাশ করেও যে কেউ ব্যাংক, বীমা বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে প্রবেশনারি অফিসার হিসেবে যোগ দিতে পারে। বাংলাদেশে বর্তমানে এমন ব্যাংক, বীমা, কোম্পানি, শিল্প ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান নাই যেখানে ‘ কর্পোরেট আইন বিভাগ’ নাই। এই বিভাগে ল’ অফিসার হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার একটাই শর্ত- আইনের ডিগ্রিধারী হতে হবে। তারমানে সাধারণ ব্যাংকিং, কোম্পানি ও শিল্প প্রতিষ্ঠানে সাধারণ অফিসার হিসেবে আবেদনের পাশাপাশি আইন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ লাভের সুযোগ শুধু আইনের ডিগ্রিধারীদের জন্যই সংরক্ষিত ! এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘সহকারী পরিচালক (জেনারেল সাইড)’ পদে অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের সাথে আবেদনের পাশাপাশি আইনের ডিগ্রিধারীরা ‘সহকারী পরিচালক (লিগ্যাল সাইড) পদে নিয়োগ লাভের সুযোগ পায়। এবং এটি আইনের ডিগ্রিধারীদের জন্য সংরক্ষিত। এ সমস্ত প্রতিষ্ঠান আবার অভিজ্ঞ ও দক্ষ প্র্যাকটিসিং লইয়ারদের কে ‘প্যানেল আইনজীবী’ হিসেবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ও দিয়ে থাকে। এটি আইনজীবীদের জন্য আরেকটি বাড়তি সুযোগ।

 ৭/ ন্যাশনাল ও মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিঃ দেশীয় ও বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর ম্যানেজমেন্ট, মার্কেটিং, হিউম্যান রিসোর্স ইত্যাদি জেনারেল সাইডের বিভাগে অন্যান্য বিষয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে আইনের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারে। ভোগ্য পণ্য কোম্পানী- ইউনিলিভার, নেসলে, সিগারেট কোম্পানি- ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, জুতা কোম্পানি- বাটা, এপেক্স, স্টিল তৈরির কোম্পানি- BSRM, KSRM, তারকা হোটেল- রেস্টুরেন্ট ব্যবসা, রূপ চর্চার বিউটি পার্লার থেকে শুরু করে গ্রামীন ফোন, এয়ারটেল ইত্যাদি মোবাইল অপারেটর পর্যন্ত প্রায় সব ন্যাশনাল কিংবা মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিতেই ‘কর্পোরেট লিগ্যাল এফেয়ার্স’ বিভাগ আছে। আর যেখানেই লিগ্যান ডিভিশান সেখানেই ‘ল’ ডিগ্রিধারী প্রার্থীর চাহিদা। আর এসব পদে নিয়োগ লাভ শুধুই আইনের জন্য সংরক্ষিত ! এছাড়া আইনের একজন স্নাতক যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে Human Resource Management কে মেজর নিয়ে ইভেনিং বা এক্সিকিউটিভ এমবিএ ডিগ্রি নিতে পারেন। অথবা নিদেনপক্ষে Post Graduate Diploma in Human Resource Management (PGD in HRM) এই ডিপ্লোমা ডিগ্রি নিতে পারলে দেশের শীর্ষ স্থানীয় কর্পোরেট হাউস, ব্যাংক, অন্যান্য কোম্পানী কিংবা গার্মেন্টেস সেক্টরে ‘হিউম্যান রিসোর্স অফিসার’ হিসেবে যোগ দেওয়ার বিরাট সুযোগ রয়েছে কারন ল ও হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট খুব ঘনিষ্ট সম্পর্কিত। কোন কোম্পানি যদি এই দুই বিষয়ে একই সাথে ডিগ্রিধারী যোগ্য কোন প্রার্থীকে পায় তাহলে দুই বিভাগে আলাদা দু’জন লোক নিয়োগের বিলাসিতার বদলে একজনকেই নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেবে- এবং বুঝতেই পারছেন সেটি আপনিই !


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top