Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ , সময়- ৫:১৯ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
নাজমুল হুদাকে ৪৫ দিনের মধ্যে আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ  নির্বাচনকালীন সম্ভাব্য নাশকতা মোকাবিলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার  একজন শিশুকে পিইসি পরীক্ষার জন্য যেভাবে পরিশ্রম করতে হয়, সত্যিই অমানবিক : সমাজকল্যাণমন্ত্রী নির্বাচনকে সামনে রেখে আদর্শগত নয়, কৌশলগত জোট করছে আওয়ামী লীগ : সাধারণ সম্পাদক থার্টিফার্স্ট উদযাপন নিষিদ্ধ : স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের স্বার্থে পেশাদারিত্ব বজায় রাখবে সেনাবাহিনী  মহাজোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার শিগগিরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসছে  প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু আজ  ভোট পর্যবেক্ষণের জন্য আবেদন শেষ তারিখ ২১ নভেম্বর  আ'লীগ যত রকম ১০ নম্বরি করার করুক, ভোট দেবো, ভোটে থাকব : ড. কামাল হোসেন

আমার লজ্জা কিসের, লজ্জা বাংলাদেশের


খালেদা আকন্দ

আপডেট সময়: ১৯ জানুয়ারী ২০১৮ ১২:২৪ পিএম:
আমার লজ্জা কিসের, লজ্জা বাংলাদেশের

গতকাল একটা ষ্টেটাসে পূর্ণীমা শীলের ধর্ষণের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ দিয়ে ফেইসবুকে অনেকের পোষ্ট নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম কারণ বার বার পূর্ণীমার অসহায় মুখটাই আমার মনে হচ্ছিল- এসব শুনতে অবশ্যই ওর ভালো লাগার কথা নয়- আমাদের প্রতিবাদ ধর্ষণের বিরুদ্ধে, ধর্ষকদের বিরুদ্ধে, তৎকালিন প্রশাসনের বিরুদ্ধে কিন্তু ধর্ষিতাকে বার, বার জনসমক্ষে উন্মুক্ত করা কখনই নয়। 

কিন্তু অনেকেরই মতে ঘটনাটি যেহেতু সবার জানা সেহেতু আবার নুতন করে এসব বলাটা দোষণীয় নয় বরং শিক্ষনীয়। অনেকে আবার এই প্রতিবাদ করাটাকে বিএনপির দোষ ঢাকার চেষ্টা করাও বলেছেন।

যাই হোক এ ব্যাপারে মুন্নীর সাহার এক সাক্ষাৎকারে ২০০১ সালে ধর্ষণের শিকার হওয়া পূর্ণিমার নিজেরই বক্তব্য তুলে ধরছি- তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া মর্মান্তিক সেই ঘটনার কথা বলেছেন, সঙ্গে বলেছেন এ ঘটনা নিয়ে তার গত ১৭ বছরের অভিজ্ঞতার কথা। 

পূর্ণিমা বলেন, ‘অস্ত্রের মুখে আমাকে ধর্ষণ করে সন্ত্রাসীরা। আশপাশের মানুষ দেখলেও ঠেকাতে আসেনি। সেই অভিজ্ঞতার কথা আমি ভুলে যেতে চাই। কিন্তু একটা শব্দ ঘুরেফিরে বারবার সামনে চলে আসে— ধর্ষিতা। মানুষ আমাকে জিজ্ঞাসা করে আমার লজ্জা করে কিনা। কিন্তু আমার লজ্জা কিসের, লজ্জা বাংলাদেশের। যেখানেই যাই, শুনতে হয় আমি ধর্ষিতা। ধর্ষিতা, ধর্ষণ— এসব শব্দ শুনতে শুনতে আমার পরিবারও বিপর্যস্ত।’
পূর্ণীমা বলেন, ‘‘কেউ একজন ধর্ষণের শিকার হলে সবাই ‘ধর্ষিতা’ ‘ধর্ষিতা’ বলে অস্থির হয়ে যায়। কিন্তু এই শব্দ বাদ দিলে ধর্ষণের শিকার মানুষটি একটু স্বাভাবিক হতে পারে। ধর্ষিতা শব্দটি খুবই পীড়াদায়ক। ধর্ষণের শিকার হতে হয় একবার, কিন্তু ‘ধর্ষিতা’ শব্দটি শুনতে হয় বারবার।’

ফেসবুক স্টাটাস লিঙ্ক 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top