Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ , সময়- ৩:১০ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
বৈশ্বিক ক্ষুধা সূচকে গত বছরের তুলনায় আরও দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার পর এবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা চলতি বছরেই বাংলাদেশে চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্ট শেষ পর্যন্ত ভর্তুকি দিয়ে গ্যাসের দাম না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত : বিইআরসি নরসিংদীর ‘জঙ্গি আস্তানায়’ যৌথবাহীনির অভিযান সমাপ্ত  এই মুহূর্তে কোনও রাজবন্দি নাই, যারা আছে তারা সবাই অপরাধী : তথ্যমন্ত্রী অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা ছাড়া দুদক টিকবে না : দুর্নীতি দমন কমিশন নরসিংদীর 'জঙ্গি আস্তানা' থেকে দু'টি লাশ উদ্ধার, জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান ৮ হাজার রোহিঙ্গার প্রথম তালিকা যাচাই করে তথ্য স্বীকার করেছে মায়ানমার জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলায় সম্মিলিত প্রচেষ্টার বিকল্প নেই : পানি সম্পদ মন্ত্রী

জোট বাড়াতে দুই বড় দল আ'লীগে ও বিএনপিতে তৎপরতা


অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ১৯ জুলাই ২০১৮ ১:৩১ এএম:
জোট বাড়াতে দুই বড় দল আ'লীগে ও বিএনপিতে তৎপরতা

আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনের জয় ঘরে তুলতে বলয় বা জোট বাড়াতে দুই বড় দল আওয়ামী লীগে ও বিএনপিতে তৎপরতা চলছে বেশ কিছু দিন ধরে।  আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের সঙ্গে জোটভুক্ত হচ্ছে আরও ৯ দল। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ হতে বলা হচ্ছে- এটি হবে নির্বাচনি জোট। ১৪ দলের নামে কোনো পরিবর্তন আসবে না।

তথ্য মতে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ প্রতিবারই অংশীদারিত্ব সরকার গঠন করেছে। বর্তমানে শরিক দল এবং বিরোধী দল নিয়ে সমঝোতার সরকার পরিচালনা করছে দলটি। আগামীতেও সরকারে অংশীজন বাড়িয়ে হলেও রাষ্ট্র ক্ষমতা ধরে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ। বিরোধী শিবির বিএনপি-জামায়াতের জোট সম্প্রসারণের খবরে জোট বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয় ১৪ দলীয় নেতারা। চলতি বছরের শুরু থেকেই আগামী নির্বাচন, বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিসহ বহুমুখী চাপ মোকাবিলায় সমমনা দলগুলোকে জোটে তৎপর হয়ে উঠে আওয়ামী লীগ। 

১৪ দলীয় জোটের শরিকদের মধ্যে দূরত্ব নিরসনসহ কীভাবে জোট আরও সম্প্রসারণের তাগাদা দেয় শীর্ষ নেতারা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী রাজনৈতিক দলগুলোকেও জোটে আনতে ভেতরে ভেতরে আলোচনা এগিয়ে আনা হয়। প্রথম দিকে ৪টি দলের নাম শোনা গেলেও এখন ৯টি দলের জোটভুক্ত হওয়া সময়ের ব্যাপার। ইতোমধ্যে গতকাল বুধবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এমপির ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সঙ্গে সমমনা ৯টি দলের এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

বৈঠকে অংশ নেওয়া ৯টি দলগুলো- বাহাদুর শাহর ইসলামিক ফ্রন্ট, নাজমুল হুদার তৃণমূল বিএনপি, আবুল কালাম আজাদ এমপির বিএনএ, কৃষক শ্রমিক পার্টি, সম্মিলিত ইসলামিক জোট, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স, গণতান্ত্রিক আন্দোলন, জাগো দল, একামত আন্দোলন।বৈঠকে আগামীতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করার কথা জানান দলগুলোর নেতারা। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ১৪ দলীয় জোটের সমন্বয়ক, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।বৈঠকের বিষয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘এই নয়টি রাজনৈতিক দল ১৪ দলের সঙ্গে কাজ করতে চায়। বৈঠকে ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ তাদের কথা শুনেছেন। তাদের বক্তব্য প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করবো। 

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত নেবেন।’বৈঠক আয়োজন বিষয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই দলগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। একাত্তরের ঘাতকদের লালনকারী খালেদা জিয়ার অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করছেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ছোটো-বড় সবাইকে নিয়ে আন্দোলন করতে চাই। এরই ধারাবাহিকতায় এই লড়াইয়ের সঙ্গে শরিক হতে চায় নয়টি দল।বৈঠকে অংশ নেওয়া তৃণমূল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা বলেন, ‘জাতীয়তাবাদী শক্তি বলতে তাদেরই বোঝায়, যারা অসাম্প্রদায়িক শক্তিকে বিশ্বাস করে। 

কিন্তু সেই জাতীয়তাবাদী শক্তি আজ সাম্প্রদায়িকতায় কলুষিত। সেই জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন সুদৃঢ় করার জন্য জাতীয়তাবাদী জোট হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর অনুরাগী হয়ে কাজ করতে চাই। যেসব চক্রান্ত হচ্ছে জনগণের বিরুদ্ধে, সেটাকে মোকাবিলা করার জন্যই এই অসাম্প্রদায়িক জোট করার জন্য কাজ করবো।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top