Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ , সময়- ১১:৫৮ অপরাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
‘তারুণ্যের প্রথম ভোট উন্নয়নের স্বার্থে হোক, শন্তির পক্ষে হোক’ জামিনে মুক্ত ভিকারুননিসার শিক্ষক হাসনা হেনা ময়মনসিংহ মুক্ত দিবস আজ খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে রিটের আদেশ আগামীকাল  মনোনয়নপত্র ফিরে পাচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন শেখ হাসিনা, ১২ ডিসেম্বর সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য ২০১৫ থেকে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ প্রধান নির্বাচন কমিশনাসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল ভোট প্রচারণায় সোহেল তাজের ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ 

ঢাবি স্থিতিশীল রাখতে আলোচনায় বসার আহ্বান শিক্ষক সমিতির


নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রজন্মকণ্ঠ

আপডেট সময়: ২২ জুলাই ২০১৮ ৫:২৯ পিএম:
ঢাবি স্থিতিশীল রাখতে আলোচনায় বসার আহ্বান শিক্ষক সমিতির

কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রেক্ষিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সৃষ্ট পরিস্থিতি সমাধানের জন্য শিক্ষক-ছাত্রদের আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল। সেইসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী কোনো ধরনের তৎপরতা বরদাস্ত করা হবে না বলে হুশিয়ার করেছেন তিনি।

রোববার (২২ জুলাই) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের মূল ফটকে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ বিঘ্নিত করার অপচেষ্টার প্রতিবাদে ‘সচেতন শিক্ষক সমাজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ ব্যানারে মানববন্ধনটি আয়োজন করা হয়।

অধ্যাপক মাকসুদ কামাল বলেন, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উস্কিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার মাধ্যমে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে একটি পক্ষ। গত ১৯ তারিখে নিপীড়নবিরোধী শিক্ষকদের কর্মসূচিতে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক আকমল হোসেন বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বক্তব্য রেখেছেন। আয়োজকরা এর প্রতিবাদ না করে অনেকে হাততালি দিয়েছেন। তখন আমরা বুঝতে পারি এরা কারা? অপ্রাসঙ্গিক ইস্যু এনে বঙ্গবন্ধুকে অপমান করা হচ্ছে। তারা তারেক জিয়ার ভাষায় বক্তব্য রাখছেন।

তিনি আরও বলেন, কোটার সংস্কারের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করা বা কটাক্ষ করা কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। এসব কাজে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো ছাত্র যদি অন্যায়ভাবে কারাগারে থাকে তাকেও ছাড়িয়ে নিয়ে আসার জন্য তিনি প্রশাসনের কাছে আহ্বান জানান।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি বলেন, আর দু’বছর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শতবর্ষ উদযাপন করবে। আমাদের প্রাণের বিশ্ববিদ্যালয়কে আমরা মর্যাদার জায়গায় রাখতে চাই। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থিতিশীল রাখতে আমরা সবাইকে আলোচনায় বসার আহ্বান জানাই। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিদের উচিত হবে না বিরোধীদের কোনো ধরনের সুযোগ দেওয়া।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বলেন, ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ করা শিক্ষক সমাজ কোনভাবেই মেনে নেবে না। কিন্তু ন্যায্য দাবির সঙ্গে আমরা একমত পোষণ করব।

রোকেয়া হলের প্রাধ্যক্ষ ড. জিনাত হুদা বলেন, কোটা আন্দোলন গণতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু আন্দোলনের নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন অরাজকতা তৈরি হচ্ছে, তখন এর বিরুদ্ধে আমাদের দাঁড়াতে হবে।

অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমসের অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম, শিক্ষক সমিতির যুগ্ম-সম্পাদক তাজিন আজিজ চৌধুরী, সিন্ডিকেট সদস্য সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ হুমায়ূন কবির প্রমুখ।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top