Projonmo Kantho logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ , সময়- ৯:২৪ পূর্বাহ্ন
Total Visitor: Projonmo Kantho Media Ltd.
শিরোনাম
রাখাইনে এখনো রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ তৈরি হয়নি : রিচার্ড অলব্রাইট নির্বাচনী আচরণবিধি মানছেন না সম্ভাব্য প্রার্থীরা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারই 'নির্বাচনকালীন সরকার'   মঙ্গলবার পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা নিবে আওয়ামী লীগ  আন্তর্জাতিক পুরস্কারে মনোনীত শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী প্রথম দিনে ১৩২৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে বিএনপি  পাঁচ বিভাগের ৭টি আসনে একক প্রার্থী পাচ্ছে আওয়ামী লীগ সিইসিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বদরুদ্দোজা চৌধুরী ২৩ নয়, এখন ৩০  ৩০০ সংসদীয় আসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের নির্দেশনা দিয়েছেন ইসি 

ঐক্যফ্রন্ট জোট এখন পুরোপুরি বিএনপির কব্জায় ! 


প্রজন্মকণ্ঠ অনলাইন রিপোর্ট

আপডেট সময়: ৭ নভেম্বর ২০১৮ ১১:২০ পিএম:
ঐক্যফ্রন্ট জোট এখন পুরোপুরি বিএনপির কব্জায় ! 

গতকাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভা করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। এর আগেও ঐক্যফ্রন্ট দুটি জনসভা করেছে। যার একটি অনুষ্ঠিত হয়েছে সিলেটে, অপরটি চট্টগ্রামে। দুটি জনসভার একটিতেও নিজের ভাষণের সময় বেগম খালেদা জিয়ার নাম একটি বারের জন্য উচ্চারণ করেননি ড. কামাল হোসেন।   

সিলেটে ড. কামালের বক্তব্য শেষে ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রশ্নের মুখে ড. কামাল বলেন, তিনি বেগম জিয়ার নাম বলতে ভুলে গিয়েছিলেন। আর চট্টগ্রামে তো বক্তব্যে বেগম জিয়ার নাম বলতে অস্বীকৃতিই জানান ড. কামাল হোসেন। কিন্তু গতকালের ঐক্যফ্রন্টের জনসভায় নিজ বক্তৃতার শুরু থেকে বেগম জিয়ার নাম জপলেন ড. কামাল। এতদিন ড. কামাল বঙ্গবন্ধুর নাম ভাঙ্গালেও এখন বেগম জিয়ার নাম জপায় ঐক্যফ্রন্ট জোট বিএনপির কব্জায় চলে গেছে বলেই মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।  

শুরুটা যেভাবেই হোক জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ধীরে ধীরে বিএনপির পুরোপুরি করায়ত্ত করেছে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাঁদের মতে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় ঐক্যফ্রন্ট বিএনপির করায়ত্ত করার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে দেখা দিল। 

এর আগেই ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে জোটের মুখপাত্রের পদটি আ. স. আবদুর রবের কাছ থেকে নিজের কাছে নেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশে লক্ষণীয় বিষয় ছিল, জনসভায় ছিল পুরোপুরি বিএনপির উপস্থিতি। নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সমাবেশে অংশগ্রহণকারী প্রায় সবাই ছিলেন বিএনপি। এর আগে ঐক্যফ্রন্টে দেখা যায়নি এমন অনেক বিএনপি নেতাও এসেছিলেন গতকালের সমাবেশে। এছাড়া ঐক্যফ্রন্টে নেই কিন্তু বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলের অনেক নেতাকর্মীও উপস্থিত ছিলেন আজকের ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে। সমাবেশে ছিলেন কল্যাণ পার্টিসহ ২০ দলের কয়েকটি দল।

ঐক্যফ্রন্ট ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে, বিএনপি যা চাইছে ঐক্যফ্রন্টের শীষ নেতা ড. কামাল হোসেন তাই মেনে নিচ্ছেন। নিজের আহ্বায়ক পদটি বাঁচানোর জন্যই ড. কামাল বিএনপির সব কথা শুনছেন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

এতদিন ভাষণে বঙ্গবন্ধুর নাম দিয়েই বক্তব্য শুরু করেছেন ড. কামাল। বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কথা বলেছেন। কখনোই কারান্তরীণ বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির কথা বলেননি। কিন্তু গতকালের ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে ড. কামাল তাঁর বক্তব্য শুরুই করেন বেগম জিয়াকে দিয়ে। বেগম জিয়ার মুক্তি চান ড. কামাল। একই সঙ্গে অন্যান্য বন্দীদেরও মুক্তি চান। এই দাবিটি সম্পূর্ণই ছিল বিএনপির, যা গতকালের ধ্বনিত হলো ড. কামালের কণ্ঠেও। ড. কামাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে তাঁর বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে তারেক জিয়ার পক্ষেও কী অবস্থান নিলেন- প্রশ্নটি রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। এর আগে ড. কামাল হোসেন বারবার বলেছেন, তারেকের সঙ্গে তাঁর কোনো যোগাযোগ নেই। কিন্তু গতকাল ছিল কেন তাঁর কণ্ঠে ভিন্ন সুর। 

বিশ্লেষকরা বলছেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বয়স যতই বাড়ছে, ততই ড. কামাল হোসেন বিএনপির কাছে নতজানু হচ্ছেন। বিএনপির নেতা হিসেবেই আবির্ভূত হচ্ছেন ড. কামাল।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনি
Top